সাত মাস ধরে বিনোদন অঙ্গনের বেশির ভাগ মানুষের কোনো কাজ নেই। কাজ নেই তাই আয়ও নেই এক পয়সা। এই সময়টা ‘করোনা’ নামক ভাইরাস আমূল বদলে দিয়েছে মানুষের জীবন। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি চরম আর্থিক সংকটের মুখোমুখি মুম্বাইয়ের বিনোদন জগতের বাসিন্দারা। ভারতের নামজাদা সংগীতশিল্পী উদিত নারায়ণের ছেলে আদিত্য নারায়ণ প্রবল আর্থিক অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। এমনকি দুবেলা খাওয়ার জন্য নিজের প্রিয় বাইকটি বেচে দিতে হতে পারে তাঁকে। ই টাই ভারতের

default-image
বিজ্ঞাপন

লকডাউনের কারণে দীর্ঘদিন কাজের জগৎ থেকে দূরে আছেন আদিত্য। এই কয়েক মাস একদম উপার্জন হয়নি তাঁর। তাই সংসার চালাতে নিজের জমানো পুঁজিতে হাত দিতে হয়েছে আদিত্যকে। আদিত্যর আশঙ্কা, যেকোনো সময় তিনি দেউলিয়া হয়ে যেতে পারেন। আদিত্য এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘আমি কখনোই ভাবিনি যে টানা এক বছর আমি কর্মহীন থাকব। লকডাউন আমার সব পরিকল্পনা ভেস্তে দিল। আমার সব জমানো টাকা শেষ।’

default-image

আদিত্য আরও জানিয়েছেন, প্রয়োজনে বাসার জিনিসপত্র বিক্রি করে দিতে হতে পারে তাঁকে। এমনকি সংসার চালানোর জন্য নিজের সঞ্চয়েও হাত দিতে হয়েছে আদিত্যকে। তাই তাঁর হাতে সঞ্চয় বলে কিছু নেই। এ প্রসঙ্গে আদিত্য বলেছেন, ‘বেঁচে থাকার জন্য আমাকে আমার সঞ্চয় নিঃশেষ করে দিতে হয়েছে। আমি কোটিপতি নই। আমার কাছে শেষ পুঁজি ২০ হাজার টাকার মতো পড়ে আছে। এখনো কাজ না পেলে আমার সব অর্থ শেষ হয়ে যাবে। এমনকি বেঁচে থাকার জন্য আমাকে আমার বাইক পর্যন্ত বিক্রি করতে হতে পারে।’

default-image
বিজ্ঞাপন

আদিত্য নারায়ণ এই মুহূর্তে বিয়ের জন্য বারবার আলোচনায় উঠে আসছেন। শেষবার তিনি আলোচনায় ছিলেন নেহা কক্করের সঙ্গে বিয়ে (পড়ুন বিয়ের নাটক) নিয়ে। তারপর শোনা গেল, এ বছরের শেষের দিকে তিনি প্রেমিকা শ্বেতা আগারওয়ালকে বিয়ে করবেন। কিন্তু প্রবল আর্থিক অনটনের মধ্যে আদিত্য বিয়ে করবেন কি না, তা সময়ই বলবে। শ্বেতার সঙ্গে তিনি দীর্ঘ ১০ বছর ধরে ‘ইন আ রিলেশনশিপ’–এ আছেন। বাবা বিখ্যাত সংগীতশিল্পী হলেও গান গেয়ে ক্যারিয়ার করতে পারেননি আদিত্য। তবে সঞ্চালক হিসেবে নিজের এক ব্যতিক্রমী পরিচয় গড়ে তুলেছেন তিনি। টেলিভিশন দুনিয়ায় সঞ্চালক হিসেবে সবচেয়ে পছন্দের তালিকার শীর্ষে আছে আদিত্যের নাম।

default-image
মন্তব্য পড়ুন 0