হঠাৎ করেই টুইটারে ভেসে উঠল এক বার্তা। পায়েল ঘোষ নামের এক বাঙালি অভিনয়শিল্পী সেখানে ভারতীয় নির্মাতা অনুরাগ কশ্যপের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছেন। পোস্টটি ট্যাগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। পায়েলের টুইটে লেখা, ‘অনুরাগ কশ্যপ আমাকে ধর্ষণ করতে চেয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, আপনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন। একজন সৃষ্টিশীল মেধাবী নির্মাতার আড়ালে একটা দানব লুকিয়ে আছে। এই দেশের সামনে সেই দানবের আসল চেহারা উন্মোচিত করুন। আমি জানি, আমার ক্ষতি হতে পারে। আমার নিরাপত্তা নিয়েও আমি শঙ্কিত। আমাকে সাহায্য করুন প্লিজ।’

default-image
বিজ্ঞাপন

এই পোস্ট প্রকাশের প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই কঙ্গনা রনৌত টুইটটি রিটুইট করে লেখেন, ‘প্রতিটি কণ্ঠস্বর গুরুত্বপূর্ণ।’ এর সঙ্গে তিনি ‘হ্যাশট্যাগ মিটু’ ও ‘হ্যাশট্যাগ অ্যারেস্ট অনুরাগ কশ্যপ’ জুড়ে দেন। যদিও এখন পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর বা প্রধানমন্ত্রী নিজে এই টুইটের জবাব দেননি। তবে জাতীয় মহিলা সুরক্ষা কমিশনের সভাপতি রেখা গোস্বামী পায়েলকে ট্যাগ করে একটি টুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘আপনি মহিলা সুরক্ষা কমিশন বরাবর লিখিত অভিযোগ জানাতে পারেন। কমিশন বিষয়টি দেখবে।’

default-image
বিজ্ঞাপন

কঙ্গনা আর অনুরাগের দা-কুমড়ো সম্পর্ক বলিউডের কারও অজানা নয়। এদিকে তাপসী পান্নু আর স্বরা ভাস্কর আবার অনুরাগের ভালো বন্ধু। এবারও তাঁরা অনুরাগের পক্ষ নিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। তাপসী ইনস্টাগ্রাম পোস্টে লিখেছেন, ‘বন্ধু, আমার জানামতে, এই বিশ্বের সবচেয়ে নারীবাদী মানুষটা তুমি। তোমার সিনেমায় তুমি যে জগৎটা বানাও, সেখানকার নারীরা অত্যন্ত শক্তিশালী আর তাৎপর্যপূর্ণ। শিগগিরই আবার আমাদের সে রকম আরেকটা শৈল্পিক সেটে দেখা হবে।’

default-image

তাপসী আর স্বরা দুজনকেই দ্বিতীয় শ্রেণীর অভিনয়শিল্পী বলেছেন কঙ্গনা। সম্প্রতি কঙ্গনা কথার বাণ বিঁধেছে কংগ্রেসের সাবেক নেত্রী ও বলিউড তারকা ঊর্মিলা মাতন্ডকরকে। বলেছেন, ‘ঊর্মিলা বিখ্যাত হয়েছেন সফট পর্ন ছবিতে অভিনয় করে।’ তাই নিয়ে কাদা–ছোঁড়াছুঁড়ি শেষ হতে না হতেই শুরু হলো নতুন বিতর্ক।

default-image
বিজ্ঞাপন

এমনিতেই অনুরাগ কশ্যপ কোনো রাখঢাক না রেখেই মোদিবিরোধী। প্রকাশ্যেই তিনি মোদি সরকার ও বিজেপির সমালোচনা করেন। সম্প্রতি সুশান্ত সিং রাজপুতের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পরও অনুরাগ বিভিন্নভাবে তাঁর মত প্রকাশ করেছেন। হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজের স্ক্রিনশট দিয়েছেন, সেখানে সুশান্তের ম্যানেজারকে লেখা যে সুশান্তকে তিনি পছন্দ করেন না। এর আগে অনুরাগের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ফ্যান্টম ফিল্মসও ভেঙে যায় ‘মিটু’ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে। সব মিলিয়ে অনুরাগের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ ওঠায় বলিউডের একাংশ গভীর রাজনীতির গন্ধ পাচ্ছেন।

default-image
মন্তব্য পড়ুন 0