বনি সেনগুপ্ত ও কৌশানি মুখোপাধ্যায়
বনি সেনগুপ্ত ও কৌশানি মুখোপাধ্যায়ইনস্টাগ্রাম

বনি সেনগুপ্ত ও কৌশানি মুখোপাধ্যায়—টালিউডের ‘লাভবার্ড’ বলেই পরিচিত তাঁরা। কলকাতার বিনোদনজগতে অভিনেতা বনি সেনগুপ্তের সঙ্গে অভিনেত্রী কৌশানি মুখোপাধ্যায়ের সম্পর্কের বিষয়টি সবাই জানেন। বনি-কৌশানির অনুরাগীরা এখন শুধু তাঁদের সাতপাকে বাঁধা পড়ার অপেক্ষায় আছেন। শোনা যায়, এই জুটি ২০২২ সালে সাতপাকে বাঁধা পড়তে পারেন। তবে এই দুই তারকা এবার আলোচনায় এসেছেন নতুন করে। দুজনের অবস্থান এখন দুটি ভিন্নমতের রাজনৈতিক দলে। একজন বিজেপিতে, অন্যজন তৃণমূলে।

default-image

বুধবার দিলীপ ঘোষের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিলেন বনি সেনগুপ্ত। কিছুদিন আগেই কৌশানি মুখোপাধ্যায় যোগ দিয়েছেন তৃণমূলে।
ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্র বলছে, বনির রাজনীতিতে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা চলছিল আগে থেকেই। সম্প্রতি তাঁকে দেখা গিয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টির সদস্য অভিনেতা সোহেল দত্তের বাড়িতে। সেদিনের আয়োজনে শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, রুদ্রনীল ঘোষ ও বৈশালী ডালমিয়াদেরও দেখা গিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

আর সেই অনুষ্ঠানের দিন কয়েক পরই দিল্লিতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তাঁরা। তাঁদের সঙ্গে এক আয়োজনে দেখে অভিনেতা বনির বিষয়েও জল্পনা জোরালো হয়েছিল।

default-image

কানাঘুষা তখনই শোনা যায়, বালিগঞ্জ থেকে নাকি তাঁকে প্রার্থী করা হতে পারে। তবে অভিনেতা নিজে এসব গুজব উড়িয়ে দেন। জোর দিয়ে বনি সেনগুপ্ত বলেছিলেন, ‘দিদির পাশেই ছিলাম। দিদির পাশেই থাকব। বিজেপিতে যোগদানের প্রশ্নই ওঠে না!’ আজ বুধবার বিজেপিতে যোগ দিয়েই বনি বলেন, ‘মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। গুরুজনের নির্দেশ মেনে চলব।’

default-image

অভিনেত্রী কৌশানী মুখোপাধ্যায় তৃণমূলের অনুরাগী। গত ২৪ জানুয়ারি তৃণমূলে যোগ দেওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে কৌশানী তাঁর প্রথম ছবির নামটিই উচ্চারণ করেছিলেন, ‘পারব না আমি ছাড়তে তোকে’; মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও ছাড়তে পারবেন না তিনি। তাঁর মন্তব্য ছিল এমনই। তাঁর সেই ছবির নায়ক থেকে এখন যিনি প্রেমিক, সেই বনি সেনগুপ্ত বুধবার বিজেপিতে যোগ দিলেন। বনির মা পিয়া সেনগুপ্তও কৌশানীর সঙ্গে তৃণমূলে আছেন।

কৌশানীর সঙ্গে একই দিনে তৃণমূলে যোগ দেন বনির মা। জানা গেছে, তিনিও নাকি জানতেন না ছেলের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার বিষয়টি। লোকমুখে শুনেছেন এই খবর! তাঁর মতে, ছেলে বড় হয়েছে। তার নিজস্ব মতামত তৈরি হয়েছে। সেই জায়গা থেকেই হয়তো এই সিদ্ধান্ত তার। পিয়া সেনগুপ্ত বলেন, ‘যাবতীয় বিরোধিতা রাজনীতির মঞ্চেই তোলা থাকবে। অন্তত মা-ছেলের সম্পর্কে এর কোনো প্রভাব পড়বে না।’

default-image

ভোটের আগে পশ্চিম বাংলার রাজনীতিতে দলবদলের হিড়িক পড়েছে। শিল্পী মহলও দুই ভাগে ভাগ হয়ে পড়েছে। পায়েল সরকার, শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়, যশ দাশগুপ্তের মতো তারকারা যেমন বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন, তেমনই পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, নায়িকা জুন, সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায়, সায়নী দের মতো অভিনেত্রীরা আবার তৃণমূল বেছে নিয়েছেন।

default-image
বিজ্ঞাপন
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন