বড় ব্যানার, নামজাদা পরিচালকের হাত ধরে বলিউডে এসেছিলেন তারা সুতারিয়া। তাতে শেষরক্ষা হয়নি। শুরুতেই হোঁচট খেতে হয়েছে তাঁকে। বলিউডের বক্স অফিস ইতিহাসে সেরা ফ্লপ ছবির একটি ছিল তারা অভিনীত ‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার টু’।

বিজ্ঞাপন
default-image

ছোটবেলায় ইংল্যান্ডের ‘রয়্যাল একাডেমি অব ডান্স’ ও ‘সোসাইটি ফর টিচার্স অব ডান্সিং’—দুই প্রতিষ্ঠানে নাচ শিখেছিলেন তারা ও তাঁর যমজ বোন পিয়া। পারদর্শী হয়ে উঠেছিলেন ক্ল্যাসিক্যাল ব্যালে, মডার্ন ডান্স ও লাতিন আমেরিকান নাচে। পরে পেশাদার শিল্পী হিসেবে তারা সুতারিয়া শুরু করেন গান। তারপর নাচ, গান ফেলে শুরু করলেন লেখাপড়া। গণমাধ্যম বিষয়ে স্নাতকের শিক্ষার্থী থাকাকালীন শুরু করলেন ভিডিও জকির কাজ। তারপর একদিন অভিনয়ে।

কথা ছিল হলিউডের ফ্যান্টাসি ফিল্ম আলাদিন দিয়ে বড় পর্দার খাতা খুলবেন তারা সুতারিয়া। কিন্তু শেষমেশ তাঁর জায়গাটা নিয়ে নিলেন নাওমি স্কট। বলিউডের পুনিত মালহোত্রা পরিচালিত করণ জোহর প্রযোজিত ‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার টু’ দিয়ে শুরু হয় তাঁর ভাগ্য পরীক্ষা। দর্শক ও সমালোচককে তুষ্ট করতে পারেনি সেই ছবি। রিভিউতে বলা হয়েছে, এই ছবির পরের কাহিনি আগে, আর আগের কাহিনি পরে দেখানো হলে, সিনেমায় বিশেষ কোনো পরিবর্তন হতো না! বলা হয়েছিল, কোনো সিনেমা খুব খারাপভাবে ফ্লপ করলে সেটাকে ‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার টু’র সঙ্গে তুলনা করা হবে। হিন্দি সিনেমার ভক্তরা যদি টিকিট কেটে প্রেক্ষাগৃহে যায়, তাহলে সে ‘ড্রামা’র চেয়ে ‘ট্রমা’ বেশি অনুভব করবে!

বিজ্ঞাপন
default-image

‘মারজাওয়া’ সিনেমায় মূক ও বধির সংগীত শিক্ষকের ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য তারা শিখেছিলেন সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ। কিন্তু সেই শেখা সিনেমার কোনো কাজে লাগেনি। তবে হাল ছাড়েননি তারা। ২০১৪ সালের হিট সিনেমা ‘এক ভিলেন’–এর সিকুয়েল ‘তাড়াপ’–এ আদিত্য রাই কাপুর, জন আব্রাহাম ও দিশা পাটানির সঙ্গে দেখা দেবেন তিনি।

মন্তব্য পড়ুন 0