ভারতের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী প্রকাশ জাভরেকর কয়েক ঘণ্টা আগে একটি টুইট করেছেন। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, কে পাচ্ছেন ৫১তম দাদাসাহেব ফালকে। তিনি আর কেউ নন, দক্ষিণ ভারতীয় মহাতারকা, ‘থালাইভা’ রজনীকান্ত। টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে ২০১৯ সালের দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কারের জন্য নাম ঘোষণা করছি। এবার এই পুরস্কার পাচ্ছেন ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে অন্যতম সেরা অভিনেতা রজনীকান্ত। অভিনেতা, প্রযোজক আর চিত্রনাট্যকার হিসেবে তাঁর অবদান অবিস্মরণীয়। আমরা সেটাকে সম্মান জানাই। জুরিবোর্ডের সদস্য ছিলেন আশা ভোঁসলে, সুভাষ ঘাই, শঙ্কর মহাদেবন ও বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়। তাঁদের আমাদের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ।’

default-image

এএনআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভারতের কেন্দ্রীয় এই মন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রতিবছর ভারতীয় সিনেমায় বিশেষ অবদান রাখার জন্য একজনকে এই পুরস্কার দেওয়া হয়। ২০১৯ সালে ৫১তম দাদাসাহেব ফালকের এই ঘোষণা আসার কথা ছিল ২০২০ সালে। তবে করোনার কারণে গত বছর এই আয়োজন স্থগিত রাখা হয়। এ বছর সম্মানিত জুরিবোর্ড এক হয়ে রজনীকান্তের নাম জমা দিয়েছেন। আর আমরা সেটি গ্রহণ করেছি।’

default-image
বিজ্ঞাপন

১৯৭৫ সালে তামিল ছবি ‘অপূর্ব রাগনগল’ দিয়ে অভিনয় জীবন শুরু করেন রজনীকান্ত। ৪৫ বছর দাপটের সঙ্গে বড় পর্দায় রাজত্ব করে রজনীকান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তিনি এবার রাজনীতি করবেন। নিজের রাজনৈতিক দল তৈরি করবেন। কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন ৭০ বছর বয়সী এই অভিনেতা।

default-image

ভারতীয় সিনেমার জনক দাদাসাহেবের আসল নাম ধুনদিরাজ গোবিন্দ ফালকে। ১৮৭০ সালের ৩০ এপ্রিল জন্ম নেন তিনি, মারা যান ১৯৪৪ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি। ১৯১৩ সালে মুক্তি পায় তাঁর পরিচালিত প্রথম ছবি ‘রাজা হরিশচন্দ্র’। এটিকেই ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র হিসেবে ধরা হয়। ৩১ বছরের ক্যারিয়ারে ৯৫টি সিনেমা বানিয়েছেন তিনি। আরও আছে ২৭টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। তাঁর নামে দীর্ঘদিন ধরে দেওয়া হচ্ছে ভারতীয় সিনেমার অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ এই পুরস্কার। পুরস্কারের অর্থমূল্য ১০ লাখ রুপি। এর আগে সত্যজিৎ রায়, রাজ কাপুর, লতা মঙ্গেশকর, দীলিপ কুমার, অমিতাভ বচ্চন, আশা ভোঁসলে এই পুরস্কার পেয়েছেন।

default-image
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন