default-image

সম্প্রতি ‘বলিউড বাদশাহ’ শাহরুখ খানকে নোটিশ পাঠিয়েছে বৃহানমুম্বাই মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন (বিএমসি)। এর আগেও বহুবার উল্টা-পাল্টা কীর্তি ঘটিয়ে নেতিবাচক খবরের শিরোনাম হয়েছেন কিং খান। কিন্তু এবার তিনি এমন কী করলেন যাতে তাঁকে বিএমসির নোটিশ পেতে হলো!
বেশ আগে নিজের মান্নাত বাসভবনের পাশ ঘেঁষে অবৈধ র‌্যাম্প নির্মাণ করেছেন শাহরুখ। গুরুত্বপূর্ণ একটি রাস্তার বড় অংশ দখল করে আছে এই র‌্যাম্প। র‌্যাম্পটি ভেঙে ফেলার জন্যই সম্প্রতি শাহরুখকে নোটিশ পাঠিয়েছে বিএমসি। এ জন্য তাঁকে এক সপ্তাহ সময়সীমাও বেঁধে দেওয়া হয়েছে।
বান্দ্রার ব্যান্ডস্ট্যান্ড থেকে মাউন্ট মেরি গির্জার মধ্যে রাস্তার বড় একটি অংশ জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে র‌্যাম্পটি। প্রায় সময়ই ওই র‌্যাম্পের ওপর শাহরুখের বিশাল একটি ভ্যানিটি ভ্যান পার্ক করে রাখা হয়। এতে করে প্রতিনিয়ত চলাচল করতে গিয়ে অসুবিধার সম্মুখীন হন বান্দ্রার স্থানীয় অধিবাসীরা। তাঁরা প্রায় দুই বছর ধরে র‌্যাম্পটি ভেঙে ফেলার জন্য দেন-দরবার করেও সফল হতে পারেননি। অবশেষে সম্প্রতি তাঁরা স্থানীয় বিজেপি এমপি পুনম মহাজনের দ্বারস্থ হন।
পুনম বিষয়টি জানিয়ে গত ২৯ জানুয়ারি মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের কমিশনার সীতারাম কুন্তে বরাবর একটি চিঠি লেখেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে শাহরুখকে নোটিশ পাঠায় বিএমসি। এক সপ্তাহের মধ্যে শাহরুখকে র‌্যাম্পটি ভেঙে ফেলতে বলা হয়েছে। অন্যথায় র‌্যাম্পটি ভেঙে ফেলার উদ্যোগ নেবে বিএমসি এবং এই কাজে যে ব্যয় হবে তা শাহরুখকেই দিতে হবে। এক খবরে এ তথ্য জানিয়েছে মিড-ডে ডটকম।
এ প্রসঙ্গে বিএমসির অতিরিক্ত কমিশনার সঞ্জয় দেশমুখ বলেন, ‘শাহরুখ খানকে আমরা নোটিশ পাঠিয়েছি। সাত দিন পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই মুহূর্তে এর বেশি কিছু বলতে পারছি না আমি।’
প্রায় দুই বছর ধরে র‌্যাম্পটি ভেঙে ফেলার জন্য নানাভাবে চেষ্টা করেছে ওয়াচডগ ফাউন্ডেশন নামের একটি সংগঠন। শেষ পর্যন্ত সেই চেষ্টা সফল হতে যাচ্ছে জেনে দারুণ খুশি সংগঠনটির সদস্য নিকোলাস আলমিদা। তিনি বলেন, ‘আমরা বিএমসি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে জানতে পেরেছি, শাহরুখকে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। এটা আমাদের জন্য বড় একটি জয়। কারণ অনেক দিন থেকে র‌্যাম্পটি ভেঙে ফেলার জন্য আমরা একরকম যুদ্ধই চালিয়ে আসছিলাম।’
নিকোলাস আরও বলেন, ‘পুনম মহাজনের চিঠি পাওয়ার পর অবশেষে বিএমসি কর্তৃপক্ষের ঘুম ভেঙেছে। আমরা বারবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও আমাদের আগের নেতা তো চিঠি পাঠানো দূরের কথা, কোনো রকম উদ্যোগই নেননি।’
এদিকে পুনম মহাজন বলেন, ‘আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি। স্থানীয় অধিবাসীরা আমাকে তাঁদের সমস্যার কথা জানান। আমি সমস্যার গভীরতা উপলব্ধি করে বিএমসি কর্তৃপক্ষ বরাবর চিঠি লিখেছি। কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আমি চিঠি লিখিনি। আমার মূল উদ্দেশ্য সাধারণ মানুষের সুবিধা নিশ্চিত করা। বিএমসি পদক্ষেপ নিয়েছে। আমি বিষয়টিকে স্বাগত জানাই।’

বিজ্ঞাপন
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন