ভারতীয় গণমাধ্যমে লেখা হয়েছে, অরুণ গুপ্ত নামের এক ব্যবসায়ী তাঁদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছেন। তাঁর অভিযোগ, বিয়িং হিউম্যান জুয়েলারি ব্র্যান্ডের জন্য সম্প্রতি তিন কোটি টাকা দিয়ে একটি বিশেষ শোরুম খোলেন। সালমানের এই সংস্থার পক্ষ থেকে তাঁকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। পাশাপাশি এই শোরুমে রাখার জন্য সামগ্রীও পাঠানোর কথা ছিল। কিন্তু অনেক সময় চলে গেলেও এখনো কোনো সামগ্রী পাঠানো হয়নি।

চণ্ডীগড় থানার এসপি কেতন বনশাল ভারতীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘১৩ জুলাই পর্যন্ত তাঁদের সময় দেওয়া হয়েছে। কোনো অপরাধ সংগঠিত হয়ে থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ব্যবসায়ী অরুণ গুপ্ত জানিয়েছেন, প্রায় দেড় বছর আগে তিনি এই শোরুম খোলেন। বেশ কয়েকবার কোম্পানির কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে তাঁর কথাও হয়েছে। শুধু তা–ই নয়, সালমান খানের সঙ্গেও দেখা করেছেন তিনি। সালমান তাঁকে আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু জিনিস পাঠানোর কথা বারবার বলা হলেও তাঁরা কথা রাখেননি। ফলে তাঁকে আইনি ব্যবস্থার দ্বারস্থ হতে হয়েছে।

এ ব্যাপারে সালমান বা তাঁর বোন কিংবা বিয়িং হিউম্যান ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে কোনো বিবৃতি এখনো দেওয়া হয়নি। সালমান খান ২০০৭ সালে বিয়িং হিউম্যান ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। সংস্থাটি ভারতের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর শিক্ষা ও স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করে।