বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

জানা গেছে, ছবিটি এ বছরের এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে তোলা হয়েছিল। অন্তর্বর্তী জামিনে ছাড়া পেয়ে এই সময় জেলের বাইরে ছিলেন সুকেশ। খবর অনুযায়ী, সুকেশের সঙ্গে দেখা করতে চারবার চেন্নাই গিয়েছিলেন জ্যাকুলিন। জ্যাকুলিনের আসা–যাওয়ার জন্য প্রাইভেট বিমানের ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন সুকেশ।

এর আগে সুকেশের সঙ্গে জ্যাকুলিনের সম্পর্কের গুঞ্জন নিয়ে এক বিবৃতিতে এই শ্রীলঙ্কান রূপসীর মুখপাত্র বলেছিলেন, ‘এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) জ্যাকুলিনকে অভিযুক্ত হিসেবে নয়, সাক্ষী হিসেবে বয়ান দেওয়ার জন্য ডেকে পাঠাচ্ছে। উনি ওনার জবানবন্দি দিয়েছেন।

default-image

তদন্তকারী সংস্থা ভবিষ্যতে অভিনেত্রীকে যদি আবার ডেকে পাঠায়, তাহলে উনি সব রকম সাহায্য করবেন। এই মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তির সঙ্গে অভিনেত্রীর সম্পর্ক নিয়ে যে অভিযোগ উঠেছে, তা অত্যন্ত নিন্দনীয় মনে করেন জ্যাকুলিন। আর উনি এ অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন।’

২০০ কোটি রুপির আর্থিক প্রতারণা মামলার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আগস্টে জ্যাকুলিনকে প্রথম সমন পাঠিয়েছিল ইডি। প্রায় সাত ঘণ্টা তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল।

default-image

এই বলিউড অভিনেত্রীর বয়ান ‘মানি লন্ডারিং অ্যাক্ট’ অনুযায়ী রেকর্ড করা হয়েছিল। এরপর জ্যাকুলিনকে আরও দুবার সমন পাঠিয়েছিল ইডি। কিন্তু তিনি ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে ইডির দপ্তরে যাননি। তৃতীয়বার সমন পাঠানোর পর ইডির দপ্তরে হাজির ছিলেন এই শ্রীলঙ্কান রূপসী।

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন