default-image

‘সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর তদন্ত করতে সিবিআইকে নির্দেশ দিলেন সুপ্রিম কোর্ট। সব সময় সত্যের জয় হোক, এই প্রার্থনা।’ বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবরটা জানালেন বুধবার দুপুর ১২টায়। খবরটা ছড়িয়ে পড়তে সময় লাগল না। ভারত থেকে প্রকাশিত বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণে শিরোনাম করেছে, সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিলেন সুপ্রিম কোর্ট।

একই সঙ্গে সর্বোচ্চ আদালত জানিয়েছেন, এই তদন্তে মহারাষ্ট্র পুলিশ সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বা সিবিআইকে সহায়তা করবে। এ ছাড়া সুপ্রিম কোর্ট রায়ে জানিয়েছেন, সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা কে কে সিং বিহার পুলিশে যে এফআইআর করেছেন, তা সম্পূর্ণ সঠিক। তাই এই আবেদনের বিরুদ্ধে মহারাষ্ট্র সরকার যে আবেদন করেছে তার যৌক্তিকতা নেই।

default-image
বিজ্ঞাপন

১৪ জুন মুম্বাইয়ের বান্দ্রায় নিজ বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে ‘আত্মহত্যা করেছিলেন’ বলিউডের এই তরুণ নায়ক। ময়নাতদন্তে আত্মহত্যার কথা বলা হলেও সুশান্তের পরিবারসহ ভক্তরা দাবি করে আসছিলেন বিষয়টি নেহাত আত্মহত্যা নয়। বরং ‘পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড’ বলে সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।

এর মধ্যে সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা কে কে সিং পাটনা থানায় সুশান্তর প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। দুই মাস পার হলেও এই মৃত্যুরহস্যের কোনো কিনারা করতে পারেনি মুম্বাই পুলিশ। তাই বারবার সব জায়গা থেকে তদন্তের ভার সিবিআইকে দেওয়ার দাবি ওঠে। নানা দাবি এবং দাবির বিপরীতে স্থানীয় আইন সংস্থার টালবাহানার পর অবশেষে মিলল ভারতের উচ্চ আদালতের ছাড়পত্র। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর তদন্ত করবে সিবিআই। উচ্চ আদালতের পক্ষে বিচারপতি ঋষিকেশ রায় আদেশ দিলেন। সুশান্তের মৃত্যু তদন্তের দায়িত্ব মুম্বাই এবং বিহার পুলিশের থেকে নিয়ে নিজের মতো করে কাজ শুরু করবে সিবিআই। প্রয়োজনে নতুন করে এফআইআরও দায়ের করতে পারে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

default-image

সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি তাদের আদালত প্রতিবেদক সূত্রে প্রকাশ করেছে, শীর্ষ আদালতের রায়ে বলেছে, বিহার সরকারের সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করার অধিকার আছে। আর মহারাষ্ট্র সরকার সেই সুপারিশ মানতে বাধ্য। এদিন ৩৫ পাতার রায়ে মুম্বাই পুলিশকে সব তথ্য সিবিআইয়ের হাতে তুলে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট।

আদালতের পর্যবেক্ষণ, বিহার সরকার যে এফআইআর দায়ের করেছে, সেটা সম্পূর্ণ যৌক্তিক ও এখতিয়ারভুক্ত। এই রায়ের বিরুদ্ধে মহারাষ্ট্র সরকার পাল্টা আবেদন করতে পারবে না। আদালত সূত্রে খবর, বিশেষ ক্ষমতা প্রয়োগ করে শীর্ষ আদালত এদিন সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। এদিন রিয়া চক্রবর্তীর আবেদনের শুনানিও ছিল উচ্চ আদালতে।

default-image
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সংস্থা ইন্ডিয়া টাইমস মুম্বাইয়ের পুলিশ কমিশনারের বক্তব্য প্রকাশ করেছে। সেখানে তিনি বলেছেন, ‘আদালতের আদেশের কপি হাতে পেলে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। উচ্চ আদালতে আইনজীবীদের সঙ্গে আমাদের এ বিষয়ে কথা হয়েছে।’
অন্যদিকে বিহার পুলিশের ডিজিপি গুপ্তেশ্বর পান্ডে বলেন, ‘এই সিদ্ধান্তে তিনি সন্তুষ্ট। উচ্চ আদালতের এই নির্দেশ আদালতের প্রতি মানুষের আস্থা আরও বাড়িয়ে দিল। দেশবাসী এবার নিশ্চিন্ত হলো। আশা করছি, সুশান্ত সিং রাজপুত ন্যায়বিচার পাবেন।’

১৯৮৬ সালের ২১ জানুয়ারি জন্ম নেওয়া সুশান্ত পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে সবার ছোট। তাঁর বড় চার বোন আছেন। ২০১৩ সালে ‘কাই পো চে’ দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক ঘটে সুশান্তর। কিন্তু সব ফেলে ক্যারিয়ারের শুরুতেই শেষ হয় এই তরুণ মেধাবী তারকার জাগতিক ভ্রমণ।

default-image
মন্তব্য পড়ুন 0