বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর উপজেলার হাতিয়ার গ্রামে কৃষিপণ্য উৎপাদনের খামার করেছেন জ্যোতি। সেটার আড়ত নিকেতনে। সেখানে অতিথি হিসেবে হাজির হয়েছিলেন অনেক অতিথি। প্রধান অতিথি ছিলেন তাঁর মা পূর্ণিমা পাল। মেয়ের জন্মদিনে তিনি নিজ হাতে আড়ত উদ্বোধন করলেন। এ প্রসঙ্গে জ্যোতি বলেন, ‘খনার জন্য একটা আড়ত নেওয়া হয়েছিল। অনেক দিন ধরেই সেটা ব্যবহার করা হচ্ছিল না। ভাবলাম, একটা উপলক্ষ যেহেতু পাওয়া গেছে, আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা যাক। অনেক শুভাকাঙ্ক্ষী উপস্থিত আছেন। আমাদের এই খামারের চেতনায় যেহেতু নারীর ক্ষমতায়নের একটা ব্যাপার আছে, তাই মায়ের হাতেই আড়ত উদ্বোধন করা হলো।’ জন্মদিনে উপস্থিত ছিলেন অরুণা বিশ্বাস, নরেশ ভূইয়াসহ পরিবার, বিনোদন অঙ্গন, রাজনীতি ও কৃষিসংশ্লিষ্ট বেশ কজন বন্ধু।

default-image

বিধিনিষেধের কারণে অভিনয়ে বিরতি নেন জ্যোতি। এ সময় গড়ে তোলেন নিজের কৃষি খামার খনা অর্গানিক। এ খামার নিয়ে জ্যোতির কলকাতার সহশিল্পী ঋত্বিকের প্রতিক্রিয়া কী? জ্যোতি বলেন, ‘ঋত্বিকদা মাঝে একবার লিখলেন, চাষবাষ কেমন চলছে। আমি অবাক, তুমি খেয়াল করেছ! তিনি বললেন, খুব ভালো উদ্যোগ। শেষ জীবনে ঋত্বিকদারও কৃষিকাজ করার ইচ্ছে আছে। এই লকডাউনেও দেখলাম ঋত্বিক বাসায় প্রচুর গাছ লাগিয়েছেন, সেগুলোর ফুলের ছবি পোস্ট করেছেন। কৃষির প্রতি তারও দুর্বলতা আছে।’

default-image

সরকারি অনুদানের একটি ছবিতে কাজের ব্যাপারে নির্মাতাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলছেন জ্যোতি। পশ্চিমবঙ্গেও কাজের ব্যাপারে কথাবার্তা চলছে। তিনি বলেন, ‘কলকাতায় একটা ছবির কাজ পিছিয়ে গেছে। সেটা শুরু হওয়ার অপেক্ষায় আছি। ভেবে রেখেছি, লকডাউন তুলে দিলে পুরোপুরি কাজে ঢুকব। এর মধ্যে আমি খনাকে দাঁড় করাতে চেয়েছিলাম।’

ঢাকায় ‘মায়া: দ্য লস্ট মাদার’, ‘অনিল বাগচীর একদিন’, ‘জীবনঢুলি’, কলকাতায় ‘রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত’ ছবিগুলোতে অভিনয় করেছেন জ্যোতি।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন