তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার ও তাঁর সাবেক স্বামী প্রযোজক নেতা মো. ইকবাল
তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার ও তাঁর সাবেক স্বামী প্রযোজক নেতা মো. ইকবালকোলাজ : প্রথম আলো

প্রযোজক নেতা মো. ইকবালের বিরুদ্ধে রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন তাঁর সাবেক স্ত্রী। প্রথম অভিযোগ, সাবেক স্ত্রীকে জোরপূর্বক বিয়ে করতে চাওয়া এবং ইন্টারনেটে অশ্লীল ভিডিও বার্তা ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি। গতকাল মঙ্গলবার মধ্যরাতে থানায় হাজির হয়ে সাধারণ ডায়েরি করেন ইকবালের সাবেক স্ত্রী তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার। প্রথম আলোকে সাধারণ ডায়েরি করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুর রশীদ। অভিযোগের বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন প্রযোজক মো. ইকবাল।

default-image

উপস্থাপক, প্রযোজক, ব্যবসায়ী তাহেরা ফেরদৌস জেনিফারের সঙ্গে তিন বছর আগে ছাড়াছাড়ি হয়েছে চলচ্চিত্র প্রযোজক মো. ইকবালের। বনিবনা না হওয়ায় একপর্যায়ে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন জেনিফার। দুজনের ছাড়াছাড়ি হওয়ার আগে সাবেক স্বামী ইকবালের বিরুদ্ধে ঢাকার কলাবাগান থানায় নারী নির্যাতন মামলাও দায়ের করা হয়। মামলা দায়েরের পরপরই তাঁরা দুজন আলাদা হয়ে যান। গতকাল রাতে আবার ইকবালের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করার কারণ কী? জানতে চাইলে তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার অভিযোগ করেন, ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার পরও সাবেক স্বামী তাঁর পিছু ছাড়েননি।

বিজ্ঞাপন
default-image

গতকাল ঢাকার একটি পাঁচ তারকা হোটেলে জেনিফার ব্যবসায়িক মিটিংয়ে অংশ নেন। হঠাৎ সেখানে দেখা হয় ইকবালের সঙ্গে। উপস্থিত অন্যদের সামনে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটান ইকবাল। ঘটনার পরপরই হোটেল থেকে বের হয়েই জেনিফার হাতিরঝিল থাকায় সাধারণ ডায়েরি করেন। সাধারণ ডায়েরিতে তিনি উল্লেখ করেন, ইকবালের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার পর থেকেই তিনি নিজের মতো করেই থাকেন। ব্যবসা-বাণিজ্য করে নিজের জীবিকা নির্বাহ করছেন। তালাকের পরও সাবেক স্বামী মো. ইকবালের বিরুদ্ধে ন্যায্য দাবি আদায়ের জন্য আদালতে মামলা চলমান রাখেন। এই কারণে বিবাদী তাঁকে নানা সময় নানাভাবে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করতেন। শুধু তা-ই নয়, বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে জেনিফারের নামে অপপ্রচার চালাতে থাকেন বলে জেনিফারের অভিযোগ।

default-image

এদিকে গতকাল রাত নয়টায় ব্যবসায়িক মিটিংয়ে অংশ নেন জেনিফার। মো. ইকবাল সেখানে উপস্থিত হয়ে তাঁকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যেতে চান। শুধু তা-ই নয়, উপস্থিত সবার সামনে জানান, জেনিফারকে তিনি আবার বিয়ে করবেন। তখন ইকবালের সঙ্গে যেতে না চাইলে তিনি নাকি জেনিফারকে দুই গালে থাপ্পড় মারেন। বিবাদীর এমন আচরণ দেখে ওই সময় সঙ্গে থাকা চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক ও সহকারী পরিচালক মিনহাজুল ইসলাম জেনিফারকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসেন। একই সময়ে সোনারগাঁও হোটেলের নিরাপত্তাপ্রহরীরা এগিয়ে এসে ইকবালকে হোটেল থেকে চলে যেতে অনুরোধ করেন।
অভিযোগের বিষয়ে কোনো কিছুই জানেন না বলে প্রথম আলোকে জানালেন মো. ইকবাল। অভিযোগের বিষয়টি পড়ে শোনানো হলে তখন তিনি বললেন, ‘সোনারগাঁও হোটেলে তাঁর সঙ্গে আমার দেখা হয়েছে এবং তর্কাতর্কি হয়েছে ঠিকই। কিন্তু বিয়ে করার কথা, থাপ্পড় মারাসহ অন্যান্য বিষয়ে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং বানোয়াট। যাঁর সঙ্গে আমার ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে, তাঁকে আবার বিয়ে করার তো প্রশ্নই আসে না।’ মো. ইকবালের দাবি, জেনিফারের অপকর্মের খবর জানতে পেরে তাঁর কাছ থেকে সরে আসেন তিনি। চলচ্চিত্রাঙ্গনের কেউই তাঁর ব্যাপারে ইতিবাচক ধারণা রাখেন না বলে জানালেন এই প্রযোজক।

বিজ্ঞাপন
default-image

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সঙ্গে। প্রথম আলোকে তিনি বললেন, ‘গতকাল রাতেই আমরা অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে আমরা আসল ঘটনা জানতে পারব।’
জেনিফার ফেরদৌস সরকারি অনুদানে ‘আশীর্বাদ’ চলচ্চিত্র নির্মাণ নিয়েও ব্যস্ত সময় পার করছেন। মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত এই ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন মাহিয়া মাহি, জিয়াউল রোশান প্রমুখ। ছবির সংগীত পরিচালনা করছেন ইমন সাহা।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন