বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শাকিব খান ‘গলুই’ ছবির ডাবিং ফাঁসিয়ে প্রযোজক ও পরিচালককে বিপাকে ফেলে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছেন—এমন অভিযোগ এনে শাকিবকে নিয়ে ‘আক্রমণ’ করেছেন দেলোয়ার জাহান ঝন্টু। সংবাদমাধ্যমে দেওয়া তাঁর মন্তব্যটা এ রকম ছিল, ‘কত বড় সাহস, ডাবিং ছাড়া না বলে চলে যাওয়া। ও কেন বেড়াতে যাবে কাজ ফেলে...! ’ অথচ পরিচালক ও প্রযোজক দুজনেই বলছেন, শাকিব খানের যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া এবং থাকার বিষয়টি তাঁরা ভালোভাবেই অবগত। পরিচালক, প্রযোজক ও নায়ক—তিনজন মিলে সিদ্ধান্ত নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ডাবিংয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেন তাঁরা।

এদিকে শাকিব খানের মতো দেশের জনপ্রিয় একজন নায়ককে নিয়ে জ্যেষ্ঠ পরিচালকের এমন মন্তব্যে চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজকেরা অবাক হয়েছেন। ফেসবুকে শাকিব খানের ভক্তরাও এ নিয়ে প্রতিবাদ করেছেন।

default-image

বাংলাদেশ সময় গত বুধবার সন্ধ্যায় বিষয়টি নিয়ে ‘গলুই’ ছবির পরিচালক এস এ হক অলীক যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রথম আলোকে জানান, শাকিব খানের জন্য ‘গলুই’–এর কাজে তাঁরা কোনোভাবেই বিপাকে পড়েননি। বরং শাকিব খান তাঁদের আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেছেন বলে জানালেন। অলীক বলেন, ‘আমেরিকায় যাওয়ার আগে ও পরে গলুই নিয়ে হিরোর (শাকিব খান) সঙ্গে আমার নিয়মিত যোগাযোগ হয়েছে। ডাবিং বিষয়ে যখন কথা হয়, একটা পর্যায়ে আমরা জানতে হিরোর থাকার ব্যাপারটি বাড়বে। তখন প্রযোজকসহ আমরা সিদ্ধান্ত নিই, ডাবিংটা এখানেই করার। তবে হিরো আমাদের প্রস্তাব দিয়েছিলেন, শুটিংয়ের ফুটেজ অনলাইনে পাঠিয়ে দিলে তিনি নিউইয়র্ক থেকে ফ্লোরিডায় ইমন সাহার স্টুডিওতে গিয়ে ডাবিংটা সেরে নেবেন। কিন্তু প্রযোজক জানালেন, আমি গিয়েই একবারে করে আসি। এটা আমাদের পারস্পরিক বোঝাপড়া থেকেই করেছি। শাকিব তো এত আন্তরিকতা নিয়ে কাজ করেছে বলার অপেক্ষা রাখে না। কিন্তু এখানে ঝন্টু মামার (দেলোয়ার জাহান) কথা বলার তো কিছু নেই। তিনি কেন এমনটা বললেন, তা সত্যিই বোধগম্য নয়।’

default-image

শুধু ডাবিং নয়, শাকিব খান শুটিং শুরু থেকেই ‘গলুই’ সিনেমা নিয়ে ভীষণরকম আন্তরিক ছিলেন। মনে হয়েছে, নিজের প্রতিষ্ঠানের কোনো সিনেমার কাজ করছে। তাঁর পেশাদারত্ব ছিল মুগ্ধ করার মতো—জানালেন অলীক। একই কথা প্রথম আলোকে বললেন ছবির প্রযোজক খোরশেদ আলমও। তিনি বললেন, ‘এই ছবিটা আমাদের। আমরা তো ছবিটির বিষয়ে কার কাছে কোনো অভিযোগও করিনি। ঝন্টু সাহেব সিনিয়র পরিচালক। তিনি (ঝন্টু) শাকিব খানকে নিয়ে এমন কথা বলার তো এখতিয়ারই রাখেন না। আমি তো বলব, শাকিব খান “গলুই” সিনেমায় তাঁর ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করেছে। টানা ৩৫ দিনের আউটডোরের শুটিংয়ের শিডিউল দিয়েছে। এও বলেছিলেন, আরও লাগলে সমস্যা নেই। কাজটা সুন্দরভাবে করেন। শুধু গল্প ও আমাদের প্রতি আন্তরিকতার কারণে ছবিটির জন্য এভাবে খেটে কাজ করেছে। আমেরিকায় যাওয়ার আগে এবং পরেও নিয়মিত যোগাযোগ হয়েছে এবং হচ্ছেও। যুক্তরাষ্ট্রের ডাবিংসহ সবকিছু আমরা আলোচনা করেই করছি।’

default-image

গেল মাসের ১২ নভেম্বরের চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এ অংশ নিতে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে যান শাকিব খান। পরে তিনি ৪ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় ঢালিউড অ্যাওয়ার্ডেও অংশ নেন। দুটি অনুষ্ঠানে তাঁকে সম্মানিত করা হয়। এদিকে দেশে করোনা মহামারি শুরুর আগে ইবি ক্যাটাগরিতে গ্রিনকার্ডের আবেদন করায় শাকিব সিদ্ধান্ত নেন আরও কিছুদিন সেখানে অবস্থানের। একই সঙ্গে নতুন সিনেমার ঘোষণাও তিনি দুটি অনুষ্ঠানে দেন।

‘গলুই’ সিনেমার মাধ্যমে প্রথমবার অনুদানের সিনেমায় অভিনয় করছেন শাকিব খান। ২০২০-২১ অর্থবছরে অনুদান পাওয়া সিনেমাটি প্রযোজনা করছেন খোরশেদ আলম।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন