default-image

বিকেল চারটা। শাকিব খান এফডিসির গেটে। উদ্দেশ্য তিনি শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোট দিতে এসেছেন। শাকিব খান আসার সঙ্গে সঙ্গে পুরো এলাকা লোকে লোকারণ্য! তাঁর গাড়ি এসে থামল মূল ফটকে। এফডিসির গেটে গাড়ির গ্লাস নামিয়ে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ তাঁকে দেখে কুশল বিনিময় করে।

কিন্তু এরপর জনপ্রিয় এই নায়কের গাড়ি এগোয় ধীরে ধীরে! সরাসরি গিয়ে দাঁড়ায় এফডিসির কড়ইতলা। এর মধ্যেই পুরো এফডিসিতে খবর ছড়িয়ে পড়ে, শাকিব এসেছেন! তখনই ভক্তরা এসে আটকে দেন শাকিবকে। বাধ্য হয়ে হেঁটে ক্যানটিন পার হয়ে ভোটকেন্দ্রের দিকে যান শাকিব।

ততক্ষণে শাকিবের সামনে-পেছনে লোকে লোকারণ্য। শাকিব–শাকিব বলে স্লোগান উঠছিল। তাঁকে এগিয়ে নিতে ওমর সানী, মিশা সওদাগর হিমশিম খাচ্ছিলেন। তারপর ভোটকেন্দ্রের মুখেই দেখা হয় মৌসুমী ও ডিপজলের সঙ্গে। এ সময় শাকিবের উদ্দেশে ডিপজল জিজ্ঞেস করেন, ‘হিরো কেমন আছ!’ তখন শাকিব হাত নেড়ে কুশল বিনিময় করেন।

default-image

চারদিকে ভিড় বেশি জমা হলে তিনি ভোটকেন্দ্রে ঢুকে পড়েন। ভোট প্রদান শেষে প্রায় ১৫ মিনিট পর শাকিব খান সরাসরি যান প্রযোজক সমিতির অফিসে। সেখানে বসেই শাকিব খান ক্ষোভ ঝেড়ে প্রশ্ন করেন, ‘এফডিসিজুড়ে এত পুলিশ কেন? গেট দিয়ে যখন আমি ঢুকছি, আমার সঙ্গে কে এটা, পুলিশকে কেন কৈফিয়ত দিতে হবে? আমার সঙ্গে যে-ই থাকুক না কেন, নিশ্চয়ই তিনি গুরুত্বপূর্ণ কেউ!’ তিনি বলেন, ‘এফডিসি আমার ঘর, আমার বাড়ি। এখানে আমি যখন খুশি তখন আসব। বিগত নির্বাচনে এত সমস্যা দেখিনি। যা দেখেছি তা উৎসবমুখর পরিবেশ।’

শাকিব খানের মন্তব্য, সমিতিকে কেউ কেউ রাজনীতির ময়দান বানিয়ে ফেলছেন। রাজনীতির ইচ্ছা থাকলে এফডিসিতে কেন? তিনি বলেন, এফডিসি হলো সংস্কৃতিচর্চার জায়গা। এখানে নাচ, আবৃত্তি, গান, অভিনয় এগুলো হবে। এগুলোর চর্চা হবে। এখানে রাজনীতি নয়, সংস্কৃতির চর্চা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0