বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এমন ঘোষণার পরই যোগাযোগ করা হয় জয়া আহসানের সঙ্গে। কী কারণে ইউটিউব প্ল্যাটফর্ম চালু করলেন, জানতে চাইলে বললেন, ‘পরিচিতজনদের সবাই অনেক দিন ধরে বলছিল। কিন্তু কাজের ব্যস্ততায় আমার সময়ও হচ্ছিল না। এখন যেহেতু সময় বের করতে পেরেছি, তাই চালু করলাম।’

default-image

জয়া এ–ও বললেন, ‘ইউটিউবে নিয়মিত কিছু দিতে পারব তা কিন্তু নয়। অর্থবহ কিছু হলে তবেই দেব। আমি যেহেতু কিছু ইস্যু নিয়ে কাজ করি, সেই ইস্যুগুলো আরও কিছু মানুষের কাছে পৌঁছানোর দরকার মনে হয়েছে, তাই এমনটা চিন্তা করা।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে ভক্তরা আপনার নিয়মিত আপডেট পাচ্ছেন। এরপরও ইউটিউব। বিশেষ কিছু থাকবে কি? ‘আমার ইউটিউবে যেসব কনটেন্ট থাকবে, তা অন্য কোথাও পাওয়া যাবে না। ইউটিউবে সেটাই করব, যেটা একটু উৎসাহব্যঞ্জক।  আরেকটু বেশি মানুষের কাছে পৌঁছাতে চাওয়াও বলতে পারেন।’

default-image

এটা কি সময়ের দাবি? প্রশ্নটি তুলতেই জয়া বললেন, ‘সময়ের দাবি আরও অনেক আগেই ছিল। যাঁরা আমাকে ভালোবাসেন, যাঁরা আমার কাজের ভক্ত, ব্যক্তিজীবন নিয়ে ইন্সপায়ার হয়—তাঁরা যদি এসব থেকে আরেকটু ইন্সপায়ার হন, তাতে মন্দ কী। আমি একেবারে সেসব চিন্তা থেকে ইউটিউব চালু করেছি। সবাই কনটেন্ট দেখলে তা বুঝতে পারবেন।’

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন