বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরা এই চিত্রনায়িকা বললেন, ‘শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে, কিন্তু উপসর্গই এখনো পুরো শেষ হয়নি। খাওয়াদাওয়ায় অরুচিও আছে। হাসপাতালে থাকলে হয়তো এই কয় দিনে আরও উন্নতি হতো। চিকিৎসকেরাও জানিয়েছিলেন আরও কয়েকটি দিন থাকতে। কিন্তু কিচ্ছু ভালো লাগছিল না। ছেলেটা আমার অসুস্থ, যদিও বাসায় আমার আম্মা আছেন, তারপরও...। বাসায় এসে মা–ছেলে দুইজন দুই রুমে আইসোলেশনে আছি, কারণ আইজানের সমস্যাটা একটু কম। শান্তি লাগছে, ছেলেটা চোখের সামনেই আছে।’
২৯ ডিসেম্বর ছিল শাবনূরের ছেলে আইজান নেহানের জন্মদিন। সেদিন করোনা আক্রান্ত শাবনূর ছিলেন হাসপাতালের বিছানায়। আর করোনা আক্রান্ত ছেলে বাসায়। এ নিয়ে ফেসবুকে শাবনূর লিখেছিলেন, ‘ছেলের জন্মদিনে হাসপাতালে থাকায় আমি তার পাশে থাকতে পারিনি। সবার কাছে আমার বিনীত অনুরোধ, আপনারা আইজানের জন্য দোয়া করবেন, আল্লাহপাক যেন আমার নয়নের মণিকে শিগগিরই সুস্থ করে দেন।’

default-image

পাঁচ দিন ধরে পিঠের ব্যথায় ভুগে গত ২৭ ডিসেম্বর সিডনির একটি হাসপাতালে এক্স-রে করাতে যান শাবনূর। করোনাসহ আরও বেশ কিছু পরীক্ষাও করান তিনি। হাসপাতালের কাজ শেষে নিজে গাড়ি চালিয়ে সিডনির বাসায় ফেরেন। বাসায় ঢুকতেই হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, তিনি করোনায় আক্রান্ত। হঠাৎ এ খবরে বিস্মিত ও হতবাক তাঁর পরিবারের সবাই। এরপর ২৭ ডিসেম্বর আইসোলেশনে চলে যান শাবনূর। পরদিন শ্বাসকষ্ট শুরু হলে ২৯ ডিসেম্বর বুধবার সিডনির স্থানীয় সময় বেলা দুইটায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

default-image

পরিবার নিয়ে কয়েক বছর ধরে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে থাকেন ঢালিউডের একসময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাবনূর। তিনি নিয়মিত বাংলাদেশে যাওয়া-আসা করেন। পৃথিবীব্যাপী করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় অনেক দিন হলো দেশে আসতে পারেননি তিনি। শাবনূর জানান, অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলসের ওয়েস্টমেড হাসপাতালের চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে আছেন তিনি। শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও এখনো করোনা নেগেটিভ ফল পাননি শাবনূর।

default-image
ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন