বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত অক্টোবরের শেষে চিকিৎসাসেবা নিয়ে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফেরেন ফারুক। এরপর থেকে সুস্থই ছিলেন তিনি। চিকিৎসকেরা আগেই বলে দিয়েছিলেন, কিছু শারীরিক জটিলতা থাকায় ফারুকের শরীর খারাপ হতে পারে। সে জন্য তিন মাস পরপর রুটিন চেকআপ করাতে হবে।

default-image

ফেব্রুয়ারি মাসে সেই চেকআপ করতেই সিঙ্গাপুরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কিন্তু করোনার কারণে যেতে পারেননি। অবশেষে মার্চের প্রথম সপ্তাহে স্ত্রী ফারহানা পাঠানকে নিয়ে সেখানে যান তিনি। চিকিৎসকেরা সে সময় তাঁর মস্তিষ্কে একধরনের জীবাণুর সন্ধান পান। একই সময়ে রক্তে দুটি সংক্রমণও ধরা পড়ে।

৮ এপ্রিল হঠাৎ করেই চাউর হয়, মারা গেছেন ফারুক। ফেসবুকে খবরটি দ্রুত ছড়ায়। এতে পরিবার, ভক্ত ও স্বজনেরা বিরক্ত হন। একই সঙ্গে দুশ্চিন্তায় পড়েন। পরে সবাইকে আশ্বস্ত করে সিঙ্গাপুর থেকে ফারুকের স্ত্রী ফারহানা পাঠান প্রথম আলোকে জানান, বিষয়টি পুরোপুরি গুজব।

default-image

সাংসদ ও অভিনেতা ফারুক সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আট বছর ধরে সিঙ্গাপুরে নিয়মিত চিকিৎসাসেবা নিয়ে আসছেন তিনি।
প্রায় পাঁচ দশক ঢালিউডে সক্রিয় ছিলেন অভিনেতা ফারুক। অভিনয় থেকে অবসর নেওয়ার পর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-১৭ আসনে প্রথমবারের মতো সাংসদ নির্বাচিত হন তিনি।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন