বিজ্ঞাপন
default-image

‘সুতরাং’ ছবিটি নানা দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ। এই ছবির মাধ্যমে পরিচালক ও অভিনেতা হিসেবে অভিষেক হয় সুভাষ দত্তের। প্রয়াত অভিনেত্রী কবরীরও প্রথম সিনেমা এটি। সুরকার ও সংগীত পরিচালক সত্য সাহার সংগীত পরিচালনায় প্রথম ছবি এটি। এই ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রের প্লেব্যাকে বেশ আলোচিত হয়েছিলেন ফেরদৌসী রহমান ও মুস্তাফা জামান আব্বাসী।

শুধু ‘সুতরাং’ নয়, ফিল্ম আর্কাইভের আধুনিক সিন্দুকে থরে থরে সাজানো ধ্রুপদি সব সিনেমা। ফিল্ম আর্কাইভ সূত্র জানিয়েছে, শীতাতপনিয়ন্ত্রিত সেই সিন্দুকে আছে দেশ–বিদেশের তিন হাজারের বেশি চলচ্চিত্র। আছে পূর্ণদৈর্ঘ্য, স্বল্পদৈর্ঘ্য, প্রামাণ্যচিত্র ও সংবাদচিত্রের প্রিন্ট, ডিউপ নেগেটিভ ও নেগেটিভ। আছে ‘স্টপ জেনোসাইড’, ‘নদী ও নারী’, ‘তিতাস একটি নদীর নাম’সহ প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য সবাক চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’, কাজী নজরুল ইসলাম অভিনীত সিনেমা ‘ধ্রুব’। এ ছাড়া প্রমথেশ বড়ুয়ার ‘দেবদাস’, রাশিয়ার সের্গেই আইজেনস্টাইনের ‘ব্যাটেলশিপ পটেমকিন’, জাপানের আকিরা কুরোসাওয়ার ‘রশোমন’-এর মতো ধ্রুপদি ছবিও রয়েছে এখানে। অনুমতি নিয়ে এসব ছবি উপভোগ করার সুযোগ আছে।

default-image
শুধু ‘সুতরাং’ নয়, ফিল্ম আর্কাইভের আধুনিক সিন্দুকে থরে থরে সাজানো ধ্রুপদি সব সিনেমা। ফিল্ম আর্কাইভ সূত্র জানিয়েছে, শীতাতপনিয়ন্ত্রিত সেই সিন্দুকে আছে দেশ–বিদেশের তিন হাজারের বেশি চলচ্চিত্র। আছে পূর্ণদৈর্ঘ্য, স্বল্পদৈর্ঘ্য, প্রামাণ্যচিত্র ও সংবাদচিত্রের প্রিন্ট, ডিউপ নেগেটিভ ও নেগেটিভ।

শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের বিখ্যাত সব চলচ্চিত্রের মাস্টার স্ক্রিপ্ট বা চিত্রনাট্যের মূল কপি সংরক্ষিত আছে আর্কাইভে। চিত্রনাট্যগুলো দেখার অভিজ্ঞতা বলে দেবে বিখ্যাত চলচ্চিত্রকারদের শট ডিভিশন, ফুটনোট ও কাজের ধরন। আর্কাইভ সূত্র জানিয়েছে, ‘নবাব সিরাজউদ্দৌলা’, ‘জীবন থেকে নেয়া’, ‘সারেং বউ’, ‘সুপ্রভাত’, ‘সূর্য দীঘল বাড়ি’, ‘সুজন সখী’, ‘নদী ও নারী’সহ প্রায় দুই হাজারের বেশি চিত্রনাট্য ও মাস্টার স্ক্রিপ্ট পাওয়া যাবে আর্কাইভে। কিন্তু আক্ষেপ নিয়ে সেখানকার এক কর্মকর্তা জানান, তরুণ চলচ্চিত্রকার থেকে শুরু করে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের এসব চিত্রনাট্য নিয়ে তেমন আগ্রহ দেখা যায়নি।

default-image

আর্কাইভ সূত্র জানিয়েছে, সেখানে আছে চলচ্চিত্রের বই ও নথিতে সমৃদ্ধ একটি ডুপ্লেক্স লাইব্রেরি। সব মিলিয়ে এখন ৬৫ হাজারের বেশি ডকুমেন্ট রয়েছে সেখানে। এর মধ্যে ৫০ হাজার ৪৩টি দেশি-বিদেশি চলচ্চিত্রের বই। আছে চলচ্চিত্রের পোস্টারের বই। এ ছাড়া আর্কাইভে করা হয়েছে একটি ফিল্ম মিউজিয়ামও।

default-image

ফিল্ম আর্কাইভের মহাপরিচালক নিজামুল কবীর বলেন, ‘এর আগে চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট মানুষদের আসার, পাঠ করার বা এখন থেকে কিছু নেওয়ার মতো অবকাঠামোগত সুযোগ ছিল না। ছোট ছোট বাড়িতে আর্কাইভ ছিল। সেখানে লাইব্রেরিও ছিল না। এই মুহূর্তে আমাদের সুপরিসর লাইব্রেরি আছে। চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট মানুষের যাতায়াত এখন অন্য সময়ের তুলনায় বেড়েছে। একই সঙ্গে বলতে চাই, আমাদের সমগ্র চলচ্চিত্রের অবস্থা ভালো যাচ্ছে না। মেধাবী চলচ্চিত্রকাররা চলে যাচ্ছেন, সিনেমা হলের সংখ্যা কমে গেছে। চলচ্চিত্র তৈরির আগ্রহ ও বিনোয়োগও কমে গেছে।

করোনার একটা প্রভাব তো আছেই। তারপরও আমি বলব, আমরা যখন চলচ্চিত্র নিয়ে সেমিনার করি, তখন আমাদের এখানে পরিচালকেরা আসেন। হয়তো অনেকে ফিল্ম আর্কাইভ সম্পর্কে জানেন না কিংবা অবস্থানের কারণেও হয়তো কম আসছেন।

তবে আমি আশাবাদী। আমি চেষ্টা করব, চলচ্চিত্রকারদের আগ্রহ বাড়ানোর জন্য কাজ করতে। আশা করি, এই মুহূর্তে যে অবস্থায় আছে, সেখান থেকে আস্তে আস্তে উন্নতি হবে। আমরা ফিল্ম আর্কাইভ নিয়ে যে স্বপ্ন দেখি, তা বাস্তবায়িত হবে।’

default-image

চলচ্চিত্র পরিচালক মতিন রহমান বলেন, ‘তরুণ চলচ্চিত্রকারেরা প্রয়োজন মনে করেনি, তাই সেখানে যায় না! কিন্তু তরুণ নির্মাতাদের ফিল্ম আর্কাইভে যেতে হবে। একটা জিনিস মনে রাখতে হবে, ইতিহাস থেকেও অনেক কিছু শেখার আছে। আমজাদ হোসেন তাঁর চিত্রনাট্য কীভাবে করেছেন, সেটাও জানার বিষয়।’

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন