default-image

স্বামীকে ভালোবাসার পাশাপাশি ঢালিউড সিনেমাকে ভালোবেসে ফেলেছেন লাবনী। স্বামীর কর্মক্ষেত্রকে ভালোবাসেন। অমিত হাসান বলেন, ‘আমার বিয়ের পর থেকে আমার কর্মক্ষেত্রের সহকর্মী, পরিচালক, প্রযোজক সবার সঙ্গে লাবণ্যকে (লাবনী হাসান) পরিচয় করিয়ে দিই। আমি কোন জায়গায় কাজ করি, সেটা জানাতে চেয়েছি। এমনকি আমি যদি কোনো পার্টিতে যাই সেখানেও নিয়ে যাই। তখন আমার স্ত্রী নিজে থেকেই বলে, ওটা খাওয়া যাবে না, ওটা বেশি খাওয়া নিষেধ, আমার চেয়ে সে বেশি সচেতন। তার চাওয়া যেহেতু ফিল্মে কাজ করি সে জন্য আমাকে সব সময় পারফেক্ট শরীরে থাকতে হবে। শাহরুখ খানের স্ত্রী গৌরীর মতো সে–ও আমার সব বিষয়ে সচেতন। এসব কারণে শাহরুখ–গৌরীর সঙ্গে আমাদের তুলনা করা হয়।’

default-image

চলচ্চিত্রের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নিলেও তেমন একটা সামনে আসেন না লাবনী হাসান। তবে স্বামীর ভালো কাজের প্রশংসা করেন সব সময়। এ জন্য তিনি ঢালিউডের পরিচালক, অভিনয়শিল্পী, কুশলী সবার কাছে পরিচিত। লাবনী বলেন, ‘আমি জেনেশুনেই নায়ককে বিয়ে করেছি। কারণ, একজন হিরো অনেক নায়িকার সঙ্গে অভিনয় করবেন, দেরি করে বাসায় ফিরবেন, তাকে নিয়ে অনেক কথা থাকবে। এগুলো মেনে চলতে শিখতে হয়েছে। আমাদের দুজনের প্রতি দুজনের বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা আছে। সংসারজীবনে আমরা শাহরুখ খান দম্পতির ভক্ত। পরিচিতজনেরা সবাই এটা জানেন। যে কারণে তাঁরা শাহরুখ খানদের সঙ্গে তুলনা করেন।’

default-image

তাঁদের সংসারে প্রায়ই ঝগড়া হয়। সেটা আবার নিমেষেই শেষ হয়ে যায়। অনেক আগে চিত্রনায়িকা পপির সঙ্গে অভিনয় করা নিয়ে লাবনী স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘তখন আমাদের প্রথম বিয়ে হয়। সেবার রাঙামাটিতে শুটিংয়ে গিয়েছিল তারা। একটি দৃশ্য নিয়ে আমার অভিমান হয়েছিল। আমার বয়স কম ছিল। পরে আমি স্বামীর পেশার সঙ্গে অভ্যস্ত হতে শিখি। সেই থেকেই তাকে পরিবার থেকে সমর্থন দিই। আমাদের মান–অভিমান হয়, সেটা বেশি সময় থাকে না। সকালে হলে বিকেলেই শেষ। দুই মেয়ে লামিসা রহমান ও সামান্তা রহমানকে নিয়ে আমরা ভালো আছি।’

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন