বেশ কিছু ছবির শুটিং বন্ধ হয়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে
বেশ কিছু ছবির শুটিং বন্ধ হয়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে

করোনা মহামারিতে থমকে যাওয়া বেশির ভাগ ছবির শুটিং নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। অভিনয়শিল্পীরা শুটিং শেষ করতে চাইলেও তেমন সাড়া পাচ্ছেন না। তবে প্রযোজকেরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাঁদের দাবি, অভিনয়শিল্পীদের শিডিউল জটিলতার কারণে ছবির শুটিং শুরু করতে পারছেন না তাঁরা। এমন পরিস্থিতিতে বেশ কিছু ছবির শুটিং বন্ধ হয়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ ছবিগুলোর ভবিষ্যৎ কী, বলতে পারছেন না কেউ।

‘শান’, ‘ওস্তাদ’, ‘সাইকো’, ‘ইত্তেফাক’, ‘কোভিড নাইন্টিন ইন বাংলাদেশ’, ‘আ জার্নি উইথ ইউ’, ‘স্বপ্নবাজি’, ‘মা আমার বেহেস্ত’, ‘জ্যাম’, ‘প্রেমের বাঁধন’, ‘আকবর: ওয়ানস আপন আ টাইম ইন ঢাকা’সহ ২০টির বেশি ছবির শুটিং আটকে গেছে। আটকে থাকা কয়েকটি ছবির অর্ধেক শুটিং বাকি। কিছু ছবির গান ও ‘প্যাচওয়ার্ক’–এর কাজ আটকে আছে।

default-image

এসব ছবির নির্মাতা–প্রযোজক জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাস থেকে শুটিং শুরু করতে চেয়েছিলেন। ‘স্বপ্নবাজি’ ছবির প্রযোজক পিয়াল হোসেন বলেন, ‘টিকা নেওয়া শেষ হোক। মানুষ আগে হলে যাওয়া শুরু করুক। তারপর শুটিং নিয়ে ভাবতে চাই। এখন যেভাবে কাজ হচ্ছে, সেই স্রোতে গা ভাসাতে চাই না। আমার ছবির বাজেট বেশি। ঈদের পরে শুটিং করার পরিকল্পনা আছে।’

বিজ্ঞাপন

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার জানালেন, তাঁরা সিয়াম আহমেদের শিডিউলের জন্য অপেক্ষা করছেন। শিডিউল পেলেই ছবির শুটিং শুরু করবেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সিয়াম বলেন, ‘কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগ না করলে কীভাবে শুটিং করব! এখন কিছু ছবিতে আমি চুক্তিবদ্ধ। এ কাজগুলো শেষ করে অন্য ছবির শিডিউল দেব।’

default-image

অভিনেত্রী মাহিয়া মাহির পাঁচটি ছবির শুটিং স্থগিত। তিনি জানান, স্থগিত ছবিগুলোর নির্মাতা ও প্রযোজকেরা যোগাযোগ করলেই তিনি শিডিউল দেবেন। মাহি বলেন, ‘একটি ছবিতে চুক্তি সই করার পর আমার দায়িত্ব ছবির কাজ শেষ করা। হাতে এখন বেশ কিছু ছবির কাজ। বেশি দেরি হলে অসমাপ্ত ছবির কাজ কীভাবে শেষ করব বুঝতে পারছি না।’ ইতিমধ্যে একাধিক নতুন ছবির কাজে যুক্ত হয়ে পড়েছেন।

নির্মাতা রায়হান রাফির তিনটি ছবির শুটিং বন্ধ হয়ে আছে। গত বছর অক্টোবর মাসে তিনি জানিয়েছিলেন, জানুয়ারি থেকে পর্যায়ক্রমে ছবিগুলোর শুটিং শুরু করবেন। তিনি বলেন, ‘একসঙ্গে বেশ কিছু ছবি আটকে যাওয়ার কারণে কিছুটা বিপদেই পড়ে গেছি। এখন “দামাল” ছবির শুটিং করছি। এরপর “ইত্তেফাক” ও “স্বপ্নবাজি”র শুটিং করব। শিডিউল নিয়ে কথা হচ্ছে। কাজ ঝুলিয়ে না রেখে শিগগিরই শুটিং শেষ করে মুক্তি দেব।’

default-image

তরুণ অভিনেত্রী প্রিয়ন্তী ঊর্বীর প্রথম ছবি ‘স্বপ্নবাজি’। ক্যারিয়ারের প্রথম ছবি নিয়ে উচ্ছ্বসিত ছিলেন এই অভিনয়শিল্পী। কিন্তু ছবির কাজ স্থগিত হয়ে যাওয়ায় আশাহত হয়েছেন তিনি। করোনার পর থেকে ছবির ভবিষ্যৎ নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। প্রিয়ন্তী বলেন, ‘ব্যক্তিগত কারণে ছবিটি থেকে আমি সরে দাঁড়িয়েছি। ছবিটি আমি আর করছি না। বেশ কিছু কারণে এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

সাইফ চন্দন পরিচালিত ‘ওস্তাদ’ ছবির ব্যাপারে জানা গেল ভিন্ন ঘটনা। এ ছবির অভিনয়শিল্পী তাসকিন রহমান আর রোশান জানান, ছবিটির কিছু শুটিং এখনো বাকি আছে। অন্যদিকে সাইফ চন্দন ছবিটি ঈদে মুক্তি দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তবে বাকি অংশের শুটিং কবে করবেন, তা জানেন না তিনি।

default-image

স্থগিত বেশ কিছু ছবির শুটিং এরই মধ্যে শেষও হয়েছে। এগুলোর মধ্যে আছে ‘বিক্ষোভ’, ‘পরাণ’, ‘অপারেশন সুন্দরবন’ ও ‘নন্দিনী’। তবে করোনায় স্থগিত হয়ে যাওয়া অনেক ছবির শুটিং এখনো শুরু হয়নি। কবে হবে, তা নিয়েও স্পষ্ট ধারণা নেই ছবিগুলোর প্রযোজক, নির্মাতা ও অভিনয়শিল্পীদের।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন