default-image

বন্যায় অনেক পশুপাখি মারা যাচ্ছে। সেই খবর গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম সূত্রে জানতে পেরেছেন অভিনেত্রী। দুর্যোগকবলিত এলাকার পশুপাখি নিয়ে উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেন মাহি। তিনি বলেন, ‘মানুষ কোনো না কোনোভাবে বাঁচার চেষ্টা করবে। কিন্তু পশুপাখিগুলো অন্যের সহায়তা ছাড়া কীভাবে সেভ হবে। এই নিয়ে টেনশনে রাতে আমার ঠিকমতো ঘুম হচ্ছে না। আমার সামর্থ্য বা উপায় থাকলে, যত গরু–ছাগল, কুকুরসহ অন্য পশুপাখি রয়েছে, সব নিয়ে নিরাপদ স্থানে চলে আসতাম। তাদের সেভ জোন দিতে পারলে মনে শান্তি লাগত। আমার পশুপাখির প্রতি প্রচণ্ড মায়া। তাদের করুণ দশা দেখে খারাপ লাগছে। ভিডিওতে দেখলাম, অনেকে কুকুরকে সেভ করছে। এটা দেখে আমার খুব ভালো লেগেছে।’

default-image

ফেসবুক লাইভে এসে মাহি দুর্যোগকবলিত এলাকায় কীভাবে সহায়তা করা যায়, সে জন্য ভক্তদের কাছে পরামর্শ চান, ‘সিলেটে বন্যার যে ভয়াবহ অবস্থা, আমাদের সবার যার যার জায়গা থেকে কিছু করা উচিত। আমরা সবাই সিলেট পছন্দ করি। অনেকে সিলেটের সৌন্দর্য দেখতে ঘুরতে গিয়েছেন। আমাদের সবার উচিত তাদের এই দুর্যোগে কিছু করা। শুরু থেকেই আমরা চিন্তা করছিলাম, কী করা যায়। এত বাজে অবস্থা...আমি বুঝে উঠতে পারছি না, এই সময় কীভাবে তাদের পাশে থাকা যায়। এই ব্যাপারে আমাদের সাজেস্ট করুন প্লিজ। আমরা তাদের সহায়তায় এগিয়ে আসতে চাই।’ ফেসবুক লাইভে মাহির সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্বামী রাকিব সরকার। মাহির বক্তব্য শেষে লাইভে আসেন রাকিব। তিনি বলেন, ‘বন্যাকবলিত এলাকায় কাদের পাশে দাঁড়ানো উচিত, কারা অবহেলিত, কাদের প্রায়োরিটি দেওয়া উচিত, আমাদের জানান। আমরা একটি টিম তৈরির কাজ করছি। আপনারা পরামর্শ দিয়ে সহায়তা করুন।’

default-image

এদিকে মাহির লাইভ চলার সময়ই ভক্তরা মন্তব্য করতে থাকেন। কেউ জানান, দুর্যোগ আক্রান্ত এলাকার জন্য দরকার শুকনা খাবার, মোমবাতি, দেশলাই। কেউ আবার মত দেন সঙ্গে করে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও চিকিৎসক নিয়ে যাওয়ার। চটজলদি ভক্তদের পরামর্শ পেয়ে প্রতিক্রিয়া জানান মাহি, ‘আপনারা খুবই ভালো পরামর্শ দিয়েছেন। এই মুহূর্তে সবাই সবার জায়গা থেকে একটা করে স্টেপ নিয়ে এগিয়ে গেলে সিলেটবাসীর উপকার হবে। সারা বছর আমরা সিলেটবাসীকে ভালোবেসেছি, এখন তাদের সময় আপনাদের সাহায্য নেওয়ার।’

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন