অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান শাকিব খান। পাশাপাশি সদ্য মুক্তি পাওয়া ঢালিউড ছবি ‘মিশন এক্সট্রিম’ সবাইকে দেখার আহ্বান জানান তিনি। শাকিব খান বলেন, ‘অনেক দেশেই ছবিটি মুক্তি পেয়েছে, নিউইয়র্কেও প্রদর্শিত হচ্ছে। আপনারা সবাই অবশ্যই ছবিটি দেখবেন।’ শাকিব বলেন, ‘যাঁরা বাংলাদেশের সিনেমাকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরার চেষ্টা করছেন, আমাদের সবার উচিত তাঁদের সাপোর্ট করা।’ ওই অনুষ্ঠানের দর্শক আসনে উপস্থিত ছিলেন আরিফিন শুভর এক বোন। ‘মিশন এক্সট্রিম’ নিয়ে শাকিব খানের আহ্বান বাংলাদেশে শুভর কানে পৌঁছাতে সময় লাগেনি। সঙ্গে সঙ্গে শাকিব খানকে খুদে বার্তায় ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন শুভ।

ভক্ত–অনুসারীরা যখন ফেসবুকে ট্রল করায় ব্যস্ত, তখন ‘মিশন এক্সট্রিম’ নিয়ে শাকিবের বক্তব্যে ভীষণ খুশি হয়েছেন আরিফিন শুভ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এর আগে শাকিব ভাই আমার কোনো ছবি নিয়ে এভাবে বলেননি। এই প্রথম নির্দিষ্ট করে আমার অভিনীত একটি ছবির নাম উল্লেখ্য করে ছবিটি সবাইকে দেখতে বলেছেন। ব্যাপারটা আমার খুবই ভালো লেগেছে।’

একসময় রাজ্জাক, আলমগীর, জসীম কিংবা ফারুকরা একসঙ্গে অনেক কাজ করেছেন। মাল্টিকাস্টে ভালো ভালো ছবি তৈরি হয়েছে ঢাকায়। বিষয়টি মনে করিয়ে দিতেই শুভ বলেন, ‘আমি, শাকিব ভাই, চঞ্চল ভাই, সিয়ামরা মিলে একসঙ্গে কাজ করলে ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। ইন্ডাস্ট্রির চেহারায় পাল্টে যাবে।’ শাকিব খান দেশে ফিরলে তাঁর সঙ্গে কাজের প্রস্তাব দেবেন শুভ। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা একসঙ্গে কাজ করলে ভালো কিছু হবে। আমার অর্জন অল্প সময়ের, শাকিব ভাইয়ের দীর্ঘ। ঠিকঠাক পরিকল্পনা করে কাজ করলে সহজেই দর্শকের কাছে পৌঁছানো সম্ভব। আমরা সেই চেষ্টা করতেই পারি।’