বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মৌসুমীর স্বামী চিত্রনায়ক ওমর সানীর সঙ্গে কথা হলে তিনিও মৌসুমীর নির্বাচন করার ব্যাপারে সরাসরি কিছু বলেননি। তবে তাঁর ভীষণ চাওয়া, মৌসুমী এই সংগঠনের সভাপতি হোন।

default-image

ওমর সানী বলেন, ‘মৌসুমী কী সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা যদিও আমার জানা নেই; তার পরও আমার একটা চাওয়া, শিল্পী সমিতির সভাপতি হোক মৌসুমী। তার মধ্যে নেতৃত্ব দেওয়ার দারুণ গুণাবলি আছে। সে নিজে সৎ ও আপাদমস্তক চলচ্চিত্র–অন্তঃপ্রাণ। এমনকি সে এই সমিতির সভাপতির পদ ডিজার্ভও করে।’

default-image

মৌসুমীকেই কেন সভাপতি হতে হবে? জানতে চাইলে ওমর সানী বলেন, ‘আমাদের চলচ্চিত্রজগৎ এখন রুগ্‌ণ অবস্থায় আছে। যেকোনো রোগ সারানোর জন্য তো একজন ভালো ডাক্তারের কাছে আমরা যাই। আমি মনে করি, শিল্পীদের মধ্যে যে বিভাজন, অস্থিরতা ও রুগ্‌ণ অবস্থা বিরাজ করছে, তাতে একজন ভালো ডাক্তার হয়ে মৌসুমী তা সারাতে পারবেই। যদিও আরও ডাক্তার আছে, তার পরও আমি মনে করি, সবার থেকে মৌসুমীই বেশি যোগ্য। মোটেও এটা নিজের স্ত্রী বলে বলছি না। একজন সহযাত্রী ও সহযোদ্ধা হিসেবে দীর্ঘ সময় ধরে মৌসুমীকে পর্যবেক্ষণ করে আমার তেমনটাই মনে হয়েছে।’

default-image

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে গত আসরে সভাপতি পদে মিশা সওদাগর পেয়েছিলেন ২২৭ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মৌসুমী পেয়েছিলেন ১২৫ ভোট। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন প্রথম অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৪ সালে। গতবার ১৫তম নির্বাচন হয়েছে। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির গঠনতন্ত্রের ৮ অনুচ্ছেদের (চ) অনুযায়ী মেয়াদ শেষ হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন হওয়ার কথা।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন