default-image

সমালোচক পুরস্কারের জন্য এবার জমা পড়েছিল ১৪টি পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবি ও ৬টি ওয়েব ফিল্ম। সেগুলোর মধ্যে বিচারকদের মন জয় করেছেন নোনা জলের কাব্য–এর তিতাস জিয়া, তাসনুভা তামান্না; রেহানা মরিয়ম নূর–এর আজমেরী হক বাঁধন; চন্দ্রাবতী কথার দিলরুবা দোয়েল; ওয়েব ফিল্ম খাঁচার ভেতর অচিন পাখির ফজলুর রহমান বাবু ও ইউটিউমার–এর জন্য শরীফ সিরাজ। সেরা অভিনেতা হিসেবে কে কে পাচ্ছেন সেরা অভিনয়শিল্পীর পুরস্কার, এ নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে নানা জল্পনাকল্পনা।

default-image

দেশের জলবায়ু সংকটকে পর্দা উপযোগী এক উপভোগ্য গল্পে রূপ দেওয়া হয়েছে নোনা জলের কাব্য সিনেমায়। ছবিটি বিশ্বসভায় যেমন প্রশংসিত হয়েছে, তেমনি ঢাকার সমালোচকেরাও পছন্দ করেছেন ছবির নির্মাণ ও শিল্পীদের অভিনয়। রেহানা মরিয়ম নূর তো কান চলচ্চিত্র উৎসবের আঁ সার্তেঁ রিগায় জায়গা করে নিয়ে চলে এসেছিল আগ্রহের কেন্দ্রে। ছবির নির্মাণ ও সেখানে একা মায়ের চরিত্রে বাঁধনের অভিনয় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছে নিজের দেশ থেকেও। চন্দ্রাবতী কথায় কবি চন্দ্রাবতীর ভূমিকায় দোয়েল ছিলেন অনবদ্য। কাহিনি ও নির্মাণের সঙ্গে তাঁর অভিনয়ও পেয়েছে সর্বোচ্চ নম্বর। ফজলুর রহমান বাবুর মতো শক্তিশালী অভিনেতাকে খাঁচার ভেতর অচিন পাখিতে অন্য রকম এক চরিত্রে দেখে চমকে গেছেন দর্শক–সমালোচক সবাই। অন্যদিকে ইউটিউমার ছবিতে কড়ে গোনা কয়েকটি দৃশ্য আর সংলাপে মন কেড়ে নিয়েছেন শরীফ সিরাজ ওরফে ‘জ্যাকসন ভাই’। ২০টি সিনেমার ২০–এর অধিক অভিনয়শিল্পীর মধ্যে এই সেরাটুকু দেওয়ার প্রতিযোগিতায় যদিও কেউ কারও থেকে কম নন। তবু কোনো এক সূক্ষ্ম বিন্দুতে বিচারকের কলম থমকে গিয়েছিল।

default-image

মেরিল–প্রথম আলো সমালোচক পুরস্কার ২০২১–এর জন্য জমা পড়েছিল ছয়টি ওয়েব সিরিজের নাম। সেগুলো দেখে বিচারকেরা পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন দিয়েছেন তিন সিরিজের পাঁচ পরিচালককে। জাগো বাহের সিদ্দিক আহমেদ, সালেহ সোবহান ও সুকর্ণ শাহেদ; ঊনলৌকিক–এর রবিউল আলম ও মহানগর–এর জন্য আশফাক নিপুণ। মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার ২০২১–এ কারা হবেন বিজয়ী, সেটা জানা যাবে ২৭ মে।

করোনার কারণে ২০১৯ ও ২০২০ সালের মেরিল–প্রথম আলো পুরস্কার আয়োজন করা হয়নি। এর মধ্যে করোনার কারণে বড় মিলনায়তনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বাধ্যবাধকতা ছিল বলে পুরস্কৃত তারকাদের বাসায় পুরস্কার পৌঁছে দেয় কর্তৃপক্ষ।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন