মাহিয়া মাহি।
মাহিয়া মাহি।ছবি: সংগৃহীত

ভক্তরা তক্কে তক্কে থাকেন, মাহি কখন স্ট্যাটাস দেবেন। মাহি স্ট্যাটাস দিলেই লাইক, কমেন্ট, শেয়ার করতে হবে। কোনো কোনো ভক্তের মন্তব্যে বিভ্রান্ত হন মাহি! তাঁর স্ট্যাটাসের অন্য রকম অর্থ তৈরি করে ফেলেন তাঁদের কেউ কেউ। ফেসবুকে প্রায়ই এ রকম ঘটনার অভিজ্ঞতা হচ্ছে ঢালিউড অভিনেত্রীর। একবার তাঁর একটি পোস্ট দেখে ভক্তদের অনেকে ধরেই নিয়েছিলেন, বরের সঙ্গে তাঁর ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। এ নিয়ে খবরও প্রকাশ করে ফেলেছিল কতিপয় পোর্টাল।

default-image

ফেসবুকে নিয়মিত লেখেন ঢালিউড অভিনেত্রী মাহিয়া মাহি। বিশেষ কিছু নয়, কেবলই মন যা চায় তা–ই। সেই লেখার নানা রকম অর্থ খুঁজে নেন তাঁর ভক্তরা। কেউ ভাবেন বিচ্ছেদ, কেউ ভাবেন একা কষ্ট পাচ্ছেন মাহি, আবার কেউ ভাবেন, নতুন করে বুঝি প্রেমে জড়িয়েছেন তিনি। এসব দেখলে কেমন লাগে তাঁর? মাহি জানান, এই ধরনের মন্তব্য সয়ে গেছে তাঁর। এসব নিয়ে মন খারাপ করে সময় অপচয় করতে চান না তিনি।

বিজ্ঞাপন

ফেসবুকে একবার মাহি স্ট্যাটাস দিয়েছেন, ‘আমি তাহারে না দেখিয়াও দেখিতে পাই, গন্ধ পাই চোখ বুজিলেই।’ আর একদিন লিখেছিলেন, ‘মাহি, তুমি তোমার সীমাকে অতিক্রম করো না।’ তারপর আরেক দিন লিখলেন, ‘ডুবেছি তোর প্রেমের নেশায় কাটবে না এই ঘোর সহসায়।’ মাহির এসব স্ট্যাটাস একান্ত ব্যক্তিগত অনুভূতির বহিঃপ্রকাশ। এই অভিনেত্রী জানান, এগুলো উদ্দেশ্যহীনভাবে লেখা। প্রায় অর্থহীন লেখাগুলোকে অনেকেই অন্য অর্থ করে ফেলেছেন।

default-image

তিনি মনে করেন, এ ধরনের মন্তব্য করে মানুষকে বিব্রত করা ছাড়া আর কিছু নয়। মাহি বলেন, ‘আমি আমার মতো করে কিছু লিখে স্ট্যাটাস দিই। সেটা না বুঝেই অনেকে বিভ্রান্তি ছড়ায়। এটা দুঃখজনক। আমি তো সবাইকে গিয়ে গিয়ে বলতে পারব না, আপনারা অন্যায় মন্তব্য করছেন। কে কী লিখল, এটা তাঁদের ব্যাপার। এসব গায়ে সয়ে গেছে। এসব নিয়ে এখন আর মাথা ঘামাই না, রাগ করি না, মনও খারাপ করি না। এসব নিয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া দেখানো মানেই আমার কাছে মনে হয় সময় নষ্ট করা।’

বরের সঙ্গে মাহির বিচ্ছেদ হয়েছে। বিভিন্ন অনলাইন নিউজপোর্টালে প্রায়ই এ রকম মনগড়া খবর বের হয়। মাহির দাবি, ওসব পোর্টালের খবর অনেকে বিশ্বাস করে। এতে সামাজিকভাবে হেয় হতে হয় তাঁদের। ওই পোর্টালগুলোর এ ধরনের খবরের প্রতিবাদ করে মাহি বলেন, ‘লালশাক ডটকম নামেও একটি অনলাইন পোর্টাল থাকতে পারে। এখন এই ধরনের অনলাইনগুলো কী লিখল, সেটা পাত্তা দিতে চাই না। কারণ, আমি জানি, কারা প্রকৃত জার্নালিস্ট। কারা প্রপার নিউজটা লিখছে, সেসব লেখাকেই সবার গুরুত্ব দেওয়া উচিত। নাম-ঠিকানাহীন অনলাইনের নিউজে আমি গুরুত্ব দিই না। তাদের গুরুত্ব দিলে তারা মাথায় উঠবে। আমরা ভালো আছি। আমাদের সম্পর্ক নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াবেন না। কারও সংসারই সব সময় এক রকম যায় না। অপু একটু আনরোমান্টিক, কিন্তু আমার কাছে সে বেস্ট।’

default-image

কিন্তু বর অপুর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক কি অবনতির দিকে গড়াচ্ছে? এমন প্রশ্নে মাহি জানান, তাঁরা ভালোই আছেন। তবে মাঝেমধ্যে দ্বিধায় পড়ে যান এই অভিনেত্রী। মাহির অভিযোগ, বর অপু তাঁকে একটু সময় কম দেন।

বিজ্ঞাপন

অনেক সময় তিনি মাহিকে রেখে একাই ঘুমিয়ে যান, একাই খান। তাঁরা নিজেদের মতো করে সময় কাটাতে পারেন খুব কম। তা ছাড়া তাঁর বরের ভেতরে কোনো ছল নেই। তিনি বলেন, ‘সে “বাবু খাইসো” টাইপ ছেলে না। আমি জানি, সে আমাকে কতটা ভালোবাসে। আমি যত বড় ভুল করি না কেন, আমার সঙ্গে যা–ই ঘটুক না কেন, সে কখনোই আমার হাত ছাড়বে না। সরি বলার আগেই সে আমাকে ক্ষমা করবে। এই রকম একটা মানুষ আমার পাশে আছে, এটাই বড় কথা। আমি “বাবু খাইসো” টাইপ মানুষ দিয়ে কী করব, যারা ভুয়া, পারমানেন্ট না।’

গত মাসে শুটিংয়ের জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার কথা ছিল মাহির। ভিসা জটিলতায় যাওয়া হয়নি। তিনি বলেন, ‘নবাব এলএলবি’ ছবির গানের দৃশ্য বাকি আছে। এই মাসেই শাকিব খানের সঙ্গে দেশের বাইরে যাবেন সেই শুটিংয়ে অংশ নিতে। এখন মাহি ব্যস্ত ‘আশীর্বাদ’ ছবির কাজ নিয়ে। করোনায় স্থগিত রয়েছে ‘স্বপ্নবাজি’ ছবির কাজ। শিগগিরই সেই শুটিং শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

default-image
মন্তব্য পড়ুন 0