default-image

কথা ছিল গত ডিসেম্বর মাসে নিপুণের নতুন ছবি ‘একাত্তরের মা জননী’ মুক্তি পাবে। সেভাবে সব ধরনের প্রস্তুতিও নিয়েছিলেন নিপুণ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ছবিটি মুক্তি পায়নি। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে সামনের মার্চ মাসে। আজ রোববার প্রথম আলোর সঙ্গে আলাপে তেমনটাই জানালেন নিপুণ। বললেন, ‘অনেক আগেই ছবিটির কাজ শেষ হয়েছে। আশা ছিল, গত বছরের ডিসেম্বরে আমার অভিনীত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ছবিটি দেখার সুযোগ পাবেন দর্শকেরা। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে ছবিটি মুক্তি না পাওয়ায় মন খারাপ হয়েছিল। দেরিতে হলেও অবশেষে স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে আগামী মার্চ মাসে। এ জন্য আমি অনেক খুশি।’
২০০৭ সালে ‘সাজঘর’ আর ২০০৯ সালে ‘চাঁদের মতো বউ’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব-অভিনেত্রী হিসেবে দুবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন নিপুণ। ‘একাত্তরের মা জননী’ ছবিটি নিয়ে নিপুণের প্রত্যাশা অনেক বেশি। বললেন, ‘এই ছবির জন্য আমি আরও বড় কিছু আশা করছি। কারণ, এবার আমি মূল চরিত্রে অভিনয় করেছি। ছবিটিতে আমাকে দুই বয়সের চরিত্র রূপায়ণ করতে হয়েছে। ষাটোর্ধ্ব বয়সের অংশটি নিয়ে আমি বেশি শঙ্কিত ছিলাম। শুটিং শুরুর আগে আমার বাসায় মেকআপ নিয়ে কয়েক দিন মহড়াও করেছি। ছবিটি মুক্তির পর সবাই বুঝতে পারবেন, দুটি চরিত্রের জন্য আমাকে কেমন কষ্ট করতে হয়েছে।’
চলচ্চিত্রে নিপুণ প্রথম অভিনয় করেন ২০০৬ সালে। এরপর এখন পর্যন্ত তিনি অভিনয় করেছেন ৪৫টি ছবিতে। নতুন বছরে সালাহউদ্দিন লাভলুর ‘জনম জনমে’ ছবির কাজ করার কথা ছিল। কিন্তু দেশের বর্তমান পরিস্থিতির কারণে ছবিটির কাজ শুরু করতে পারেননি নিপুণ। বর্তমান অবস্থা নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন তিনি। বললেন, ‘ইদানীং দেশের যে অবস্থা চলছে, বাসা থেকে বের হতেই ভয় লাগে। জীবন বাঁচানোটাই এখন বড় ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। চলচ্চিত্রে যাঁরা বিনিয়োগ করতেন, তাঁরা সেখান থেকে পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে করে আমরা যারা ছবিতে অভিনয় করাকে পেশা হিসেবে নিয়েছি, তারা অর্থনৈতিকভাবে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি। এ অবস্থা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।’

বিজ্ঞাপন
ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন