বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বিপাশা বলেন, ‘হ্যাকাররা খুবই বাজে ভাবে আমাকে হ্যারাস করছেন। আমার কোনো বাজে ছবি নেই; কিন্তু তাঁরা ইন্টারনেট থেকে অন্য মানুষের উল্টাপাল্টা ও অশ্লীল ছবি সংগ্রহ করে আমার হ্যাকড হওয়া আইডির স্টোরিতে অনবরত পোস্ট করছেন। এটা আমাকে মানসিকভাবে কষ্ট দিচ্ছে, সমাজের সামনে ছোট করছে। অনেক চেষ্টা করেও এই সমস্যা থেকে উদ্ধার হতে পারছি না। প্রতিনিয়ত তারা অশ্লীল ছবি পোস্ট করেই যাচ্ছেন।’

default-image

বিপাশা মনে করেছিলেন একসময় এই হেনস্তার শেষ হবে। কিন্তু দিন দিন সেটি বেড়েই চলেছে। ‘পরিবারের লোকদের বোঝাতে পারলেও দূরসম্পর্কের অনেকেই ফোন দিয়ে বলছেন, আমি কেন অশ্লীল ছবি পোস্ট করছি। তখন বোঝাতে হচ্ছে আমি কেন আজেবাজে ছবি পোস্ট করব,’ বলেন বিপাশা। হতাশ কণ্ঠে তিনি আরও বলেন, ‘শুধু তা–ই নয়, এখন অনেক নির্মাতা যেমন “খাস জমিন” সিনেমার পরিচালক সরোয়ার ভাইসহ অনেকে নির্মাতাকে হ্যাকড হওয়া আইডি থেকে নক দিয়ে বলছেন, তিনি আমার ম্যানেজার। সব বিষয়ে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। হ্যাকারদের এই অত্যাচারে আমি অতিষ্ঠ।’

default-image

একজন চিকিৎসক শখ করেই বিপাশা কবির নামে এই ফেসবুক পেজটি চালু করেছিলেন। পরে সেই পেজটিতে আরেকজন অ্যাডমিন হওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। তাঁরা দুজন মিলে ফেসবুক পেজটি দেখভাল করতে থাকেন। সবকিছু ঠিকমতো চললেও হঠাৎ দ্বিতীয় ব্যক্তির কাছ থেকেই পেজটি হ্যাকড হয়। বিপাশা বলেন, ‘পরানে পরান বান্ধিয়া’, ‘যে দিনে’, ‘গিভ অ্যান্ড টেক’সহ পাঁচটি সিনেমার কাজ চলছে। তিনটির শুটিং শেষ। এসব সিনেমায় তাঁর সহশিল্পী বাপ্পী চৌধুরী, সাইফ খান প্রমুখ। আইটেম গানের মডেল হিসেবে তিনি আলোচনায় আসেন।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন