এরই মধ্যে কোন হলে কোন ছবি, প্রতিটি ছবি কয়টি করে হলে পাচ্ছে, সেসব চূড়ান্ত হয়ে গেছে। ছবিগুলোর পরিবেশনা প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে, ‘বিদ্রোহী’ মুক্তি পাচ্ছে ব্লকবাস্টার সিনেমাসসহ ১০২ হলে। দেশের সব কটি মাল্টিপ্লেক্সসহ ‘শান’ পেয়েছে ৩৫টি হল। সব কটি মাল্টিপ্লেক্সসহ ‘গলুই’-এর হলসংখ্যা ২৯ ও ‘বড্ড ভালোবাসি’ আসছে মাত্র ১টি হলে। মাল্টিপ্লেক্স ও একক হল মিলে মোট ১৬৭টি প্রেক্ষাগৃহে চলবে ঈদের এই চার ছবি। কিন্তু এত কমসংখ্যক হলে ছবিগুলো মুক্তি দিয়ে বিনিয়োগ ফেরা নিয়ে চিন্তায় আছেন ছবির প্রযোজকেরা।

default-image

ঈদ মানেই বড় বাজেটের ছবি। ঈদ লক্ষ্য করেই আলাদাভাবে ছবি নির্মাণ করা হয়। পাঁচ বছর আগেও দেখা গেছে, ঈদে একেকটি ছবি শতাধিক হলে মুক্তি পেয়েছে। বিনিয়োগ তুলে আনা সহজ হয়েছে প্রযোজকদের। কিন্তু এবার দৃশ্যপট ভিন্ন। একের পর এক হল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কমে গেছে হলের সংখ্যা। এই অবস্থায় বড় বাজেটের তিন ছবির মধ্যে দুটির হলসংখ্যা একেবারেই কম। তাই ছবিগুলোর বিনিয়োগ উঠে আসা অনেকটাই অনিশ্চিত।

default-image

‘গলুই’ ছবির প্রযোজক খোরশেদ আলম বলেন, ‘আমরা তো হলসংকটে আছি। এই হলসংখ্যা দিয়ে ছবির বিনিয়োগ ফেরত পাব কি না, বলা মুশকিল। তবে ছবি যদি ভালো যায়, তাহলে সিনেপ্লেক্সের ওপর ভরসা রাখতে পারি। সেখান থেকে একটা ভালো কমিশন আসতে পারে। এ ছাড়া দ্বিতীয় সপ্তাহে গিয়ে কোনো কোনো হল থেকে ছবি নেমে গেলে আমাদের ছবি নতুন করে ওই সব হলে উঠতে পারে। আশা করছি এভাবে আমাদের হল বাড়বে।’

default-image

তিনটি ছবির মধ্যে সবচেয়ে বেশি বাজেটের ছবি ‘শান’। ছবিটি মাত্র ৩৫টি হলে মুক্তি দিয়ে প্রযোজক আজাদ খানও চিন্তায় পড়ে গেছেন। তিনি বলেন, ‘আমি জানি, বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রেক্ষাগৃহ থেকে এই টাকা উঠবে না। যদি আরও ১০০ হল পাওয়া যেত, তাহলে ওঠার সম্ভাবনা ছিল। এখন কিছু করার নেই। তবে যদি সিনেপ্লেক্সগুলোতে দু-এক মাস টানা ভালো চলে, তাহলে ভালো কিছু একটা হবে।’

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন