উদ্বোধনী প্রদর্শনীতে দেখানো হয় কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হককে নিয়ে আহসান কবীরের তথ্যচিত্র ‘গল্পলোকের চিত্রকর’। প্রদর্শনী শেষে ছিল দর্শক-নির্মাতা মতবিনিময়। উৎসবের দ্বিতীয় দিন প্রদর্শিত হবে হাসান আজিজুল হকের গল্প অবলম্বনে চলচ্চিত্র ‘খাঁচা’। এ ছাড়া আমন্ত্রিত চলচ্চিত্র বিভাগে প্রদর্শিত হবে এন রাশেদ চৌধুরীর চলচ্চিত্র ‘চন্দ্রাবতী কথা’। এ প্রদর্শনীর পরও দর্শকদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তরপর্বে অংশ নেবেন পরিচালক ও কলাকুশলীরা। ২৮ ডিসেম্বর উৎসবের সমাপনী দিনে বিচারকের রায়ে পুরস্কারপ্রাপ্ত সেরা সাতটি চলচ্চিত্রকে দেওয়া হবে পুরস্কার। উৎসবে প্রতিদিন দেখানো হবে তিনটি করে সিনেমা।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আজ উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সিনেমা বাংলাদেশের প্রধান উপদেষ্টা নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার। তিনি বলেন, ‘সিনেমা বাংলাদেশ সারা বিশ্বের তরুণদের জন্য যে প্ল্যাটফর্ম তৈরির চেষ্টা করছে, তা খুবই সময়োপযোগী একটি উদ্যোগ। এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে আমাদের দেশের তরুণেরা চলচ্চিত্র তথা শিল্পমাধ্যমে আমাদের হাজার বছরের ইতিহাস-ঐতিহ্যকে আরও ভালোভাবে তুলে ধরার সুযোগ পাবে। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে নাটোরের চলচ্চিত্র আন্দোলন ভিন্ন মাত্রা পাবে।’ উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নাটোর-২ আসনের সাংসদ শফিকুল ইসলাম।

default-image

যৌথভাবে এ উৎসবের আয়োজন করেছে সিনেমা বাংলাদেশ ও নাটোর ফিল্ম ক্লাব। লক্ষ্মীপুর, রংপুর, ময়মনসিংহ এবং বান্দরবানের পর এটি উৎসবের পঞ্চম আসর।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন