বিজ্ঞাপন

গুণী এই অভিনেতা বললেন, ‘বাধ্য হয়ে অনেক নিম্নমানের গল্পে কাজ করতে হয়। গল্প ও নাটকের নাম নিয়ে একটা অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলছে, তা ছাড়া কাজ দ্রুত শেষ করতে হবে। দর্শকদের বিনোদন দেওয়ার জন্য কমেডি নির্মাণ হচ্ছে। সেগুলোর আলাদা কোনো বৈশিষ্ট্য নেই। জোর করে মানুষ হাসানোর চেষ্টা আর কত? এসব কারণে এখন আর নিম্নমানের গল্পে কাজ করছি না। সিনেমায় চরিত্র নিয়ে সময় পাওয়া যায়। নির্মাণে থাকে পরিচ্ছন্নতা। সময় নিয়ে অভিনয় করা যায়। এই জন্য সিনেমা এখন আমাকে খুব টানে।’

default-image

গত কয়েক বছরে ‘বিকেল বেলার পাখি’, ‘মায়া’সহ হাতে গোনা ৮–১০টি নাটকে অভিনয় করে মানসিকভাবে সন্তুষ্ট হতে পেরেছেন এই অভিনেতা। তবে মঞ্চনাটকের ক্ষেত্রে শতভাগ খুশিতে সব কাজ শেষ করতে পারতেন। ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন মঞ্চেই থেকে যাওয়ার। কিন্তু বাস্তবতার কাছে হেরে তিনি নাটকে অভিনয় শুরু করেন।

বাবু বলেন, ‘অভিনয় আমাকে শান্তি দেয়। সেই অভিনয় নিজের মতো করে করতে পারছি না। এর মতো কষ্ট আর নেই। দিনের পর দিন অভিনয় করে যাচ্ছি কিন্তু সন্তুষ্ট হতে পারছি না। থিয়েটার ছেড়ে খেয়ে–পরে বাঁচার জন্য নাটকে অভিনয় শুরু করলাম। সেই নাটকও এখন আগের জায়গায় নেই। এদিকে আমাদের দেশে সেভাবে থিয়েটারই নেই। ঢাকায় যে থিয়েটার রয়েছে, সেখানে শহরের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দূরবর্তী হওয়ার কারণে দর্শক সেভাবে আসছে না।

default-image

তা ছাড়া থিয়েটারের জন্য সেই অর্থে দর্শক তৈরি হচ্ছে না। সুযোগ পেলে আমার এখনো ইচ্ছা আছে নিয়মিত থিয়েটারটা করে যাওয়া।’ ‘শঙ্খনাদ’, ‘মেয়েটি এখন কোথায় যাবে’, ‘গহিন বালুচর’ ও ‘ফাগুন হাওয়া’য় অভিনয় করে চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন ফজলুর রহমান বাবু। চলচ্চিত্র অভিনেতা হিসেবে তিনি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করেন।

বাবু বলেন, ‘আমার ভাগ্য ভালো যে কিছু ভালো নির্মাতা এখনো আমাকে চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ডাকেন। তাঁদের চলচ্চিত্রে আমার বয়সী একজন মানুষের জায়গা হয়। এই কাজটাও আমাকে খুবই টানে। অনেক দিন ধরে চলচ্চিত্রে কাজ করতে পারছি না। এই কারণেও মন কিছুটা খারাপ। পাঁচটি সিনেমার শুটিং শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। করোনার কারণে সেগুলো বারবার পিছিয়ে যাচ্ছে।’

default-image

লকডাউন শুরুর পর থেকে শুটিং থেকে দূরে ছিলেন এই অভিনেতা। ঈদের পর সম্প্রতি কাজে ফিরেছেন তিনি। জানালেন, ‘হাউস নং-৯৬’ ধারাবাহিকে একেকটি গল্প নিয়ে একেকটি পর্ব। তেমন একটি পর্বে দেখা যাবে তাঁকে। যেখানে তিনি গ্রাম থেকে মেয়েকে নিয়ে ঢাকা শহরে আসেন চিকিৎসার জন্য। ইতিবাচক কিছু ঘটনার মধ্য দিয়ে এগিয়ে যায় গল্প। নাটকটি পরিচালনা করেছেন মাহমুদুর রহমান।
বাবু এখন থেকে বিরতি দিয়ে পরিস্থিতি বুঝে নিয়মিত অভিনয় করে যাবেন। তাঁর হাতে রয়েছে বেশ কিছু ধারাবাহিকের কাজ। এর মধ্যে গানেও কণ্ঠ দেবেন তিনি। ঈদে অভিনেত্রী শাওনের সঙ্গে একটি গানে কণ্ঠ দিয়ে বেশ প্রশংসিত হয়েছেন তিনি।

নাটক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন