বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সহশিল্পীরা কেমন ছিলেন?

আমার সহশিল্পীরা অনেক মজার ছিলেন। আমরা সেটে আনন্দ নিয়েই কাজ করেছি। কেন জানি রাত সাতটা–আটটা হতে হতেই কাজ শেষ হয়ে যেত। বাকি সময় আমরা আড্ডা দিতাম। যার ফলে রাতের আড্ডাটা আমাদের সকালের কাজটায় গতি এনে দিত। আমার অংশের শুটিং হয়েছে মানিকগঞ্জে।

এর আগেও তো আপনি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

এর আগে পাঁচটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি। এগুলো হচ্ছে ‘হেডমাস্টার’, ‘কারণ তোমায় ভালোবাসি’, ‘হরিযূপিয়া’, ‘কালের পুতুল’ ও ‘সত্তা’। তবে ‘গুণিন’–এর মতো সাড়া কোনোটিতে পাইনি। আমার মনে হয়, আমাকে যে অনেকে এত দিন বলতেন, ‘তোমাকে দেখি না। কোথায় থাকো, কী করো?’ আশা করি, কিছু মানুষ এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে আমাকে নতুন করে আবার চেনা শুরু করেছেন।

বিজ্ঞাপনচিত্রে অভিনয় করে বিনোদন অঙ্গনে আপনার শুরুটা ভালোই ছিল। অনিয়মিত হলেন কেন?

অনেক সময় কিছু না বুঝে মানহীন কাজ করতে হয়। একটা পর্যায়ে আমার কাছে সব প্রোডাকশন এলোমেলো লাগছিল। তাই আমি ব্যবসায় মনোযোগ দিই। আমার নিজের ফ্যাশন হাউস আছে। ব্যবসায় সময় দিতে গিয়ে কম কাজ করতে চাইতাম। অলসও হয়ে গিয়েছিলাম বলা যায়।

default-image

ব্যবসা কেমন চলছে?

প্রথম এক বছর বেশ ভালো চলছিল। করোনায় ভীষণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। আমি যেহেতু ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ে পড়েছি, তাই এ–সংক্রান্ত কিছু করতে চেয়েছিলাম। এখন শোরুম বাদ দিয়ে অনলাইনে বেচাকেনা করছি। তা ছাড়া হঠাৎ বিয়ে করায়ও কাজে মনোযোগী হতে পারিনি।

‘গুণিন’–এ আপনি যেহেতু প্রশংসিত হচ্ছেন, নতুন চলচ্চিত্র নিয়ে ভাবনা কী?

বুঝে গেছি, আমাকে দিয়ে কমার্শিয়াল সিনেমা হবে না। এখন যে অফট্র্যাকের গল্পে সিনেমা হচ্ছে, এসব করতে চাই। ওয়েব সিরিজে অভিনয় করছি। সত্যি বলতে, ভালো ভালো গল্পের সঙ্গে যুক্ত হতে চাই। অভিনয়ে নিয়মিত হতে চাই।

আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন