default-image

১৬ এপ্রিল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পেয়েছে ‘আবার বসন্ত’ ছবিটি। পরিচালক অনন্য মামুন। ছবির প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন স্পর্শিয়া ও তারিক আনাম খান। আগামী ঈদে ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দিতে চান নির্মাতারা। এই আনন্দের খবরের মধ্যেই দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে অর্চিতা স্পর্শিয়ার। ওই দিন রাতে রাজধানীর নিকেতনে বাসার কাছেই দুর্ঘটনায় আহত হন তিনি। প্রাইভেট কারের ধাক্কায় রিকশা থেকে ছিটকে পড়ে যান। মাথায় আঘাত পেয়েছেন। কিছু অংশ কেটে যায়। এখন তিনি বাসাতেই আছেন। চিকিৎসকের পরামর্শে শুটিংসহ চলাফেরা বন্ধ তাঁর। এসব বিষয় নিয়ে প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেছেন ছোট ও বড় পর্দার এই অভিনেত্রী।

কেমন আছেন?
মাথায় বেশ ক্ষত হয়েছে। ডাক্তার এক মাসের বিশ্রাম দিয়েছেন। আপাতত বেশি কথা বলা, হাঁটাচলা নিষেধ। ক্ষতের জায়গায় নয়টা সেলাই দেওয়া হয়েছে। পুরোপুরি সুস্থ হতে একটু সময় লাগবে।

কীভাবে সময় কাটছে?
বেশির ভাগ সময় বিছানায় শুয়ে থাকছি। তবে বই পড়ছি, নতুন একটি সিনেমার চিত্রনাট্য হাতে এসেছে, সেটা পড়ছি। আজ পড়া শেষ হয়ে যাবে।

সব শুটিং বাতিল করেছেন?
হ্যাঁ। দুর্ঘটনার পরদিন ১৭ এপ্রিল শুটিং ছিল, ১৮ এপ্রিল কাজ নিয়ে কয়েকটা মিটিং ছিল। ২৩ এপ্রিল বগুড়াতে স্টেজ শো। সব বাতিল করতে হয়েছে।

‘আবার বসন্ত’ ছবিটি দেখে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা প্রশংসা করেছেন।
শুনে খুব খুশি হয়েছি। পরিচালকসহ কয়েকজন ফোনে আমাকে এ খবর দিয়েছেন। কাজ প্রশংসিত হলে কার না ভালো লাগে! ছবির গল্পটা খুবই ভালো। দুজন অসম বয়সের মানুষের সম্পর্ক নিয়ে সাহসী গল্পের ছবি। আমি ছবির গল্প পড়েই কাজটি করতে রাজি হয়ে যাই।

‘আবার বসন্ত’ ঈদে মুক্তি পাবে?
এর আগে ৮ ফেব্রুয়ারি, ৫ এপ্রিল, ১২ এপ্রিল—তিনবার মুক্তি পিছিয়েছে। ছাড়পত্র পাওয়ার পর পরিচালক তো বিভিন্ন জায়গায় ঈদে মুক্তি দেওয়ার কথা বলছেন। আমার সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা হয়নি কারও।

বড় পর্দায় তারিক আনামের সঙ্গে প্রথম অভিনয় করলেন। অভিজ্ঞতা কেমন?
তাঁর সঙ্গে এর আগে কয়েকটি নাটকে কাজ করেছি। এবার একসঙ্গে বড় পর্দায় কাজ করলাম। তাও আবার দুজনের অসম বয়সের সম্পর্কের চরিত্র। যেহেতু নাটকে একসঙ্গে কাজ হয়েছিল, এ কারণে তাঁর সঙ্গে এই কাজ সহজ হয়েছে। মজা করে করতে পেরেছি। সহশিল্পীদের মধ্যে বোঝাপড়ার জায়গাটা খুব জরুরি।

‘কাঠবিড়ালি’ ছবির খবর কী?
ছবির সব কাজ শেষ। এখন পরিচালক নিয়ামুল মুক্তা ছবির পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ নিয়ে ভারতে আছেন। রমজান মাসের মধ্যেই হয়তো ছবিটি মুক্তির জন্য প্রস্তুত হয়ে যাবে। ঈদের পর ভালো কোনো সময় দেখে ছবিটি মুক্তি পেতে পারে। ছবিটি পুরো টিমের জন্য ইতিহাস। কারণ, অভিনয়শিল্পী থেকে শুরু করে ক্যামেরাম্যান, লাইটম্যান, প্রোডাকশনে যাঁরা কাজ করেছেন, কেউ পারিশ্রমিক নেননি। সবাই নিজের সন্তানের মতো করে ছবিটিতে কাজ করেছেন।

নতুন কোনো ছবিতে কাজ করছেন?
নূরুল আলম আতিকের ‘মানুষের বাগান’ ছবির শুটিং শেষ। নতুন একটি চিত্রনাট্য হাতে পেয়েছি। পড়ছি।

আপনি সব সময় একটু অন্য রকমের ছবিতে কাজ করেন। বাণিজ্যিক ঘরানার ছবিতে কাজ করছেন না কেন?
প্রস্তাব পেলে অবশ্যই করব। আমি তো সব ধরনের কাজ করতে চাই। কাজ করতে এসেছি। তবে ছবির গল্প, নির্মাণ ভালো হতে হবে। কোয়ালিটি কাজ করব। সেটা ভিন্ন ধারার হোক বা বাণিজ্যিক ধারার।

বিজ্ঞাপন
আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন