বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কেমন কাটছে?

গতকাল সকাল থেকে ১০২ ডিগ্রি জ্বরে কাতরাচ্ছি। এমন একটি বিশেষ দিনে কোথাও বের হতেও পারছি না। যদিও আমার জন্মদিন আলাদা করে পালন করি না। পাঁচ বছর ধরে দিনটিতে এতিমখানায় বাচ্চাদের সঙ্গে সময় কাটাই। তাঁদের জন্য বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা করি। এবার বের হতে পারিনি কিন্তু খাবারের ব্যবস্থা করেছি।

জ্বর হলো কী করে?

২০ সেপ্টেম্বর করোনার টিকা দিয়েছি। এরপর থেকে হালকা একটু অসুস্থ। তবে গতকাল সকালে হুট করেই জ্বরটা আসে। কয়েক দিন আগে হালকা বৃষ্টির পানি মাথায় পড়েছিল, সে কারণে জ্বরটা আসতে পারে। গত পরশু দিয়াবাড়ি গিয়েছিলাম। শরতের প্রচুর কাশফুল ফুটেছে। ওখানে আমার প্রেমিক সৈয়দ অমির একটি গানের ভিডিও শুটিং হয়েছে। কাশফুল দেখতে তাঁর সঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিলাম। ওই সময় হালকা বৃষ্টি ছিল। বৃষ্টির পানি মাথায় পড়েছিল।

default-image

সৈয়দ অমির সঙ্গে পরিচয় কী করে?

একটি গানের মডেল হতে গিয়ে দুজনের সম্পর্ক। চলতি বছর জানুয়ারি মাসে ‘ও জান রে’ নামে একটি গান করেছিলেন অমি। ওই গানের মডেল ছিলাম আমি। গানটি ২০ জানুয়ারি প্রকাশিত হয়। এর দুদিন পর আমাকে প্রস্তাব দেন অমি। তবে প্রেমের না, একবারেই বিয়ের প্রস্তাব। সেই সময় ও আমাকে বলেছিল, ‘আপনার কাজ আমার খুব পছন্দ। আপনাকে বিয়ে করতে চাই। যাকে ভালো লাগে, সারা জীবনের জন্য তাকে জীবনসঙ্গী করতে চাই।’ তার কথা খুব ভালো লেগেছিল। কারণ, এখনকার সময় অনেকের ক্ষেত্রেই দেখা যায় এক–দুই মাস ঘুরেফিরে প্রেম করে সরে পড়ে। এরপর সে তার পরিবারের সঙ্গে আমার পরিচয় করিয়ে দেয়। এভাবেই সম্পর্ক হয়ে গেল।

বিয়ে করছেন কবে?

গত ৫ জুন অমির মা মারা গেছেন। এ জন্য আপাতত বিয়ের কাজটি হচ্ছে না। এখন আমি নিয়মিত কাজ করছি। ক্যারিয়ার নিয়েও ভাবছি। অমিরও গানের ক্যারিয়ারটা আরও শক্ত হোক। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে দুই পরিবারের সম্মতিতে আগামী বছর বিয়ে হতে পারে।

default-image

জন্মদিনে অমির কাছ থেকে কী উপহার পেয়েছেন?

‘প্রেমের প্রাসাদ’ শিরোনামে গান উপহার পেয়েছি। রোমান্টিক গান। এটি আমার কাছে মূল্যবান উপহার। আমার কাছে জন্মদিনের সারপ্রাইজ। রাত ১২টা ১ মিনিটে একটি কেক ও পেনড্রাইভ হাতে করে আমার বাসায় আসে অমি। গানটি আমাকে শোনায়। আমার খুব পছন্দ হয়। পরে জানায় গানটি আমাকে নিয়ে লেখা, আমাকে ডেডিকেট করে করা। গানটির মডেলও হব আমি। ২৮ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের লোকেশনে গানটির শুটিং হবে।

অভিনয়ের ব্যাপারে অমির কোনো আপত্তি আছে কি?

না না, তার কোনো আপত্তি নেই। সে নিজেও তো মিডিয়ার মানুষ। বরং সিনেমা দেখেই নাকি আমাকে তার প্রথম ভালো লাগা তৈরি হয়েছে। অমি নিজেই ভালো সিনেমার কাজে উৎসাহিত করে। শুটিং চলার সময় কিছুক্ষণ পরপর আমাকে ফোনে কেয়ার নেয়।

এখন কী কী সিনেমার শুটিং করছেন?

‘এক পশলা বৃষ্টি’, ‘চাঁদনি’, ‘রাগী’—এই তিনটি সিনেমার শুটিং চলছে। পাশাপাশি ‘মাফিয়া’ নামে একটি ওয়েব সিরিজেরও শুটিং চলছে। মুক্তির অপেক্ষায় আছে সাতটি সিনেমা—‘চিৎকার’, ‘আয়না’, ‘কাজের ছেলে’, ‘ঘর ভাঙা সংসার’, ‘ভূতের গল্প’, ‘করপোরেট’ ও ‘যমজ’।

default-image

বেশ কটি সিনেমা হাতে। কিন্তু একের পর এক সিনেমা হল বন্ধ হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে পেশার জায়গাটা কীভাবে দেখছেন?

আমার করা এসব ছবি কবে মুক্তি পাবে তা জানি না। এখন তো সিনেমা নিয়ে তেমন কোনো আওয়াজ নেই। একসময় বড় বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ভালো ভালো সিনেমা হতো। কাজ করতেও ভালো লাগত। এখন ২০-২৫ লাখ টাকার সিনেমা হচ্ছে। অন্যদিকে অনেক সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এখনকার কাজে কোনো আনন্দ পাচ্ছি না। সবদিক থেকেই মনে হচ্ছে পিছিয়ে যাচ্ছি আমরা।

আলাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন