বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অড্রের চরিত্রে কে অভিনয় করবেন? এটা বড় আগ্রহের বিষয়। অড্রে–ভক্তদের কাছে তো অবশ্যই। পর্দায় অড্রে রূপে আসবেন রুনি ম্যারা। রুনিকে চিনতে হলে দেখতে হবে ‘নাইটমেয়ার অ্যালি’, ‘মেরি ম্যাগডালেন’, ‘লায়ন’, ‘আ ঘোস্ট স্টোরি’, ‘ক্যারল’-এর মতো ছবি। ম্যারা দুবার অস্কারে মনোনীত হন। ২০১১ সালে ‘দ্য গার্ল উইথ দ্য ড্রাগন ট্যাটু’ ও ২০১৫ সালে ‘ক্যারল’ ছবির জন্য মনোনীত হয়েছিলেন। ছবি পরিচালনার ভার ‘কল মি বাই ইয়োর নেম’খ্যাত পরিচালক লুকা গডানিনোর কাঁধে। ছবির বিষয়ে এর বাইরে আর কিছুই প্রকাশ করেনি অ্যাপল।

default-image

বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে জন্ম হয়েছিল অড্রে হেপবার্নের। মা-বাবার বিচ্ছেদের পরে অড্রে মায়ের সঙ্গে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমান। পড়ে ছিলেন হল্যান্ডে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নাৎসি বাহিনী অবরুদ্ধ করে রেখছিল তাঁদের। বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা সারা জীবন বয়ে বেড়িয়েছেন তিনি।
ব্যালের প্রতি ভালো লাগা ছিল অড্রের। তবে ব্যালে শিখতে পারেননি, মনোযোগ দিলেন অভিনয়ে। হলিউডে তখন গ্ল্যামারের ঝলক। সেখানেই সৌন্দর্যের স্নিগ্ধতা দিয়ে মন কেড়েছিলেন অড্রে। স্থান করে নেন ভক্তদের মনে। ‘রোমান হলিডে’ দিয়ে অড্রে সবার হৃদয়ে পৌঁছেছেন। তবে ‘ব্রেকফাস্ট অ্যাট টিফানিস’ ছবিটি তাঁকে খ্যাতি এনে দেয়।

আগের দুটিসহ ‘মাই ফেয়ার লেডি’, ‘ফানি ফেস’ ও ‘সাব্রিনা’ ছবিগুলোতে অস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন। ‘রোমান হলিডে’র জন্য পেয়েছিলেন অস্কার।
অড্রের প্রভাব ছাপিয়ে গিয়েছিল অভিনয়ের আঙিনা। ফ্যাশন আইকন হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন তিনি। আশির দশকের প্রথম ভাগে অভিনয়কে ইতি জানান তিনি। তাঁর সব মনোযোগ ঢেলে দেন জনহিতকর কাজে। ১৯৯৩ সালে ৬৩ বছর বয়সে মারা যান এই অভিনেত্রী।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন