বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

চলচ্চিত্রে সিডনি পটিয়ে
১৯৫০ সালে নো ওয়ে আউট ছবিতে সিডনির অভিনয় মানুষের নজর কাড়ে। নতুন চাকরি পাওয়া এক চিকিৎসক ও বর্ণবাদী রোগীকে নিয়ে ছবির কাহিনি। ১৯৫৫ সালে দ্য ব্ল্যাকবোর্ড জঙ্গল ছবিটি পেয়ে যায় অভাবনীয় জনপ্রিয়তা। প্রথমবারের মতো হলিউডের কোনো ছবিতে রক অ্যান্ড রোলের ব্যবহার দেখা যায়, আর ‘রক অ্যারাউন্ড দ্য ক্লক’ গানটিও সেই জনপ্রিয়তার অন্যতম কারণ। ১৯৫৮ সালে ‘দ্য ডিফায়েন্ট ওয়ানস’ ছবির জন্য তিনি পেয়ে যান অস্কারের মনোনয়ন আর বাফটার পুরস্কার। ১৯৬৩ সালে ‘লিলিস অব দ্য ফিল্ড’ ছবির জন্য পান অস্কার। ১৯৬৭ সালে বাণিজ্যিক ছবির প্রভাবশালী অভিনয়শিল্পী হয়ে ওঠেন পটিয়ে। ১৯৭০ সালে তিনি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান খোলেন। ১৯৭৩ সালে পরিচালক হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেন।

default-image

পটিয়ের বিপুল প্রাপ্তি
জীবদ্দশায়ও মানুষের শ্রদ্ধা–ভালোবাসা কম পাননি এই অভিনেতা। তিনিই প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ, যিনি অস্কারে সেরা অভিনেতা হিসেবে শুরুতে মনোনয়ন ও পরে পুরস্কার পান। আরও পেয়েছেন গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড, দুটি গোল্ডেন গ্লোব, একটি ব্রিটিশ অ্যাকাডেমি ফিল্ম আওয়ার্ড। ১৯৭৪ সালে পান ‘নাইট’ খেতাব। ১৯৯৫ সালে কেনেডি সেন্টার সম্মাননা, ২০০৯ সালে বারাক ওবামা তাঁকে পরিয়ে দেন প্রেসিডেনশিয়াল মেডেল অব ফ্রিডম। ১৯৯২ সালে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে আমেরিকান ফিল্ম ইনস্টিটিউট তাঁকে দিয়েছে আজীবন সম্মাননা। পাঁচ বছর পর তিনি জাপানে বাহামার রাষ্ট্রদূত নিযুক্ত হন। ২০১৬ সালে বাফটা তাঁকে দেয় ফেলোশিপ। নিজেকে বর্ণবাদ ও ভেদাভেদ বিরোধিতার প্রতীক মনে করতেন এই অভিনেতা।

default-image

বৃক্ষবিদায়
১৯৫০ সালে পটিয়ে বিয়ে করেন হোয়ানিতা হার্ডিকে। ১৯৬৫ সালে তাঁদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। ১৯৭৬ সালে বিয়ে করেন কানাডীয় অভিনেত্রী জোয়ানা শিমকেসকে। দুই সংসারে তাঁর ছয় সন্তান। মার্কিন টেলিভিশন অভিনেত্রী সিডনি তামিয়া পটিয়ে তাঁদের একজন। পটিয়ের প্রয়াণে তাঁকে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিশ্ব সিনেমার শিল্পী ও তারকারা। সেই তালিকায় আছেন অভিনেত্রী ভায়োলা ডেভিস, কেরি ওয়াশিংটন, পরিচালক টেলার পেরি, অভিনেতা ডেনজেল ওয়াশিংটন, অভিনেত্রী ডেবি অ্যালেন এবং সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা প্রমুখ। বারাক ওবামা লিখেছেন, যুগান্তকারী ভূমিকা এবং একক প্রতিভায় সিডনি পোটিয়ে সম্মান অর্জন করেছেন। চলচ্চিত্রে তাঁর ক্ষমতা আমাদের কাছাকাছি এনেছে। একটি প্রজন্মের অভিনয়শিল্পীদের সুযোগের দরজা খুলে দিয়েছিলেন তিনি। তাঁর পরিবার এবং বিপুল ভক্তকুলকে মিশেল ও আমার ভালোবাসা। হ্যালি বেরি লিখেছেন, প্রিয় সিডনি, তোমার প্রয়াণে আমার হৃদয়টা কাঁদছে। ৯৪ বছরে এই গ্রহে তুমি অসাধারণ স্বাক্ষর রেখে গেলে...

default-image

পটিয়েকে আলিঙ্গনরত একটি ছবি পোস্ট করে খ্যাতিমান মার্কিন টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব অপরা উইনফ্রে লিখেছেন, ‘মাথার ওপর থেকে বিরাট বৃক্ষটি সরে গেল। গুরু–শিক্ষক–বন্ধু–ভাই–আত্মবিশ্বাস মানতাম তাঁকে। শ্রদ্ধা করতাম, ভালোবাসতাম। তাঁর মহৎ, সদয়, বাকপটু জীবনের প্রতি শ্রদ্ধা। আমি তাঁকে হৃদয়ে রাখতাম, আদরে রাখতাম। তাঁর হৃদয়টা ছিল বিশাল, যা আমি চিরতরে লালন করব। জোয়ানা ও তাঁর সুন্দর সন্তানদের মঙ্গল কামনা করি।’

default-image

সমাজ জয়, ক্যানসার জয়
১৯৯০ সালে ৬৬ বছর বয়সে পটিয়ের প্রোস্টেট ক্যানসার ধরা পড়ে। ১৯৯৩ সালে অস্ত্রপোচারের মাধ্যমে সেটি অপসারণ করা হয়। মার্কিন সিনেমাগুলোয় পটিয়ে অভিনীত চরিত্রগুলো বর্ণবাদের ট্যাবু ভেঙে সমাজকে উদার হতে ভূমিকা রেখেছে। এ ক্ষেত্রে তিনি রোল মডেল। তিনি বলেছিলেন, ‘সামান্য কিছু ভালো কাজের জন্য যদি কেউ আমাকে মনে রাখে, আমার উপস্থিতি যদি কাউকে ইতিবাচক শক্তি যোগায়, সেটুকুই যথেষ্ট।’

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন