বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নতুন ট্রেলার দেখে যতটা বোঝা যাচ্ছে, জনসমক্ষে আসছেন অধ্যাপক আলভারো মর্তে। সঙ্গীদের উদ্ধার করতে নিজেই গাড়ি চালিয়ে ব্যাংক অব স্পেনে ঢুকছেন তিনি। রিও, ডেনভার, স্টকহোম এবং লিসবন তখন সেনাসদস্যদের হাতে। সঙ্গীদের ছাড়িয়ে নিয়ে আসা কঠিন হয়ে যাবে মর্তের জন্য। হয়তো মারাও পড়তে পারেন কেউ কেউ। ট্রেলার দেখে আবার মনে হতে পারে, আত্মসমর্পণ করবেন না তো তাঁরা?

default-image

গত ৩ সেপ্টেম্বর মুক্ত পেয়েছিল ‘মানি হাইস্ট’-এর সর্বশেষ সিজনের প্রথম পর্ব। সেবার ভক্তরা হারিয়েছিলেন টোকিওকে। নাইরোবির পর টোকিওর চলে যাওয়া সিরিজে যেন কিঞ্চিৎ শূন্যতা সৃষ্টি করে।

‘মানি হাইস্ট’ স্প্যানিশ ক্রাইম ড্রামা। নেটফ্লিক্সে ভিন্ন ভাষার সবচেয়ে বেশি দেখা ওয়েব সিরিজ হিসেবে রেকর্ড গড়েছে ‘মানি হাইস্ট’। আসছে ৩ ডিসেম্বর মুক্তি পাবে এর শেষ সিজনের দ্বিতীয় পর্ব। কী অপেক্ষা করছে সেটা দেখার জন্য অপেক্ষা করতে হবে এক মাস।

অধ্যাপক আলভারো মর্তে ঠিক করেন, একটি দল গড়বেন। সেই দল নিয়ে স্পেনের জাতীয় টাঁকশালে ২৪০ বিলিয়ন টাকা ছাপবেন। তারপর ছড়িয়ে পড়বেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। যেই ভাবনা সেই কাজ! শুরু হলো চোর-পুলিশের খেলা। এ সময় ইন্সপেক্টর রেক্যাল মুরিলোর সঙ্গে প্রেম হয়ে গেল অধ্যাপকের। টোকিও আর রিও জুটির কোটি ভক্ত জুটে গেল।

স্প্যানিশ ‘লা কাসা দে পাপেল’ বা ‘মানি হাইস্ট’ যখন মুক্তি পায়, নির্মাতারা ঠিক করেছিলেন দুই পর্বে এ অপরাধীচক্রের গল্প বলবেন। কিন্তু জনপ্রিয়তা দেখে তাঁরা স্তম্ভিত হয়ে যান। একের পর এক তৈরি হয় নতুন পর্ব। ২০২০ সালে নেটফ্লিক্স রেকর্ড দামে কিনে নেয় সিরিজটি। আর বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা পায় এর চরিত্রগুলো।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন