বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কিন্তু পর্দার বাইরে, অর্থাৎ বাস্তব জীবনে এই মারকুটে অভিনেতা এক অন্য মানুষ, একেবারে পর্দার উল্টো এক ‘ভদ্রলোক’। সম্প্রতি তাঁকে এমন চারিত্রিক সনদ দিয়েছেন প্রেমিকা রোজি হান্টিংটন–হোয়াইটলি।

আগেও এক সাক্ষাৎকারে রোজি বলেছিলেন, ‘লোকটাকে পর্দায় যেমন মারকুটে দেখা যায়, বাস্তবে কিন্তু সে নিপাট ভদ্রলোক। ঠিক যেন মাটির মানুষ।’ সম্প্রতি এই মডেল জানান, কাজ না থাকলে ঘরে কী করেন জ্যাসন স্ট্যাথাম! রোজি জানিয়েছেন, বাড়িতে থাকলে জ্যাসনের প্রিয় কাজ হচ্ছে অন্দরসজ্জা। এক ছাদের নিচে প্রায় ১১ বছর তাঁদের বাস। সম্প্রতি জায়গা বদল করে নতুন বাড়িতে উঠেছেন তাঁরা। বাড়িটার ভিতর-বাহির কীভাবে সাজিয়ে–গুছিয়ে রাখা হবে, সেই দায়িত্ব মূলত পালন করছেন অভিনেতা জ্যাসনই। এ কাজে ব্যাপক উৎসাহ তাঁর।

মহামারির ভেতর জ্যাসন ও রোজির জীবনে আসে এক বিরাট পরিবর্তন। এ সময়ে অনেকেই যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস ছেড়েছেন। জ্যাসনকেও সেখানে অনেক ছবির শুটিংয়ে অংশ নিতে হয়েছে। বলা চলে সেখানে থিতু হয়েছিলেন তিনি। পরে দুজনই যুক্তরাজ্যে চলে যান। সেখানেই চলছে নতুন বাড়ির সাজসজ্জা। জীবনের এই পরিবর্তনকে পরিবারের জন্য ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছেন রোজি।

default-image

ইংলিশ মডেল রোজি হান্টিংটন–হোয়াইটলি। লস অ্যাঞ্জেলেসে থাকার সময় মিস করতেন যুক্তরাজ্যকে। তিনি বলেন, দুটি জিনিস খুব মিস করছিলেন, ব্রিটিশদের মশকরা আর সবুজ নিসর্গ। সেখানে ফিরতে পারাটা তাঁদের দুজন ও সন্তানের জন্য একটা ভালো সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে মনে করছেন এই জুটি।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন