বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

জিন-মার্ক ভ্যালির প্রযোজনা সহযোগী প্রডিউসিং পার্টনার নাথান রোস এক স্টেটমেন্টে বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে এখনো মৃত্যুর কারণ জানতে পারিনি। তিনি ছিলেন সত্যিকারের সৃষ্টিশীল মানুষ। ব্যক্তি হিসেবে ভালো মানুষ। সব সময় ভিন্ন ধরনের কাজের চেষ্টা করতেন। যাঁরা তাঁর সঙ্গে কাজ করেছেন, তাঁরা তাঁর প্রতিভা ও দৃষ্টিভঙ্গি দেখেছেন। তিনি একাধারে আমার কাছে বন্ধু, সৃষ্টিশীল কাজের অংশীদার ও আমার বড় ভাইয়ের মতো ছিলেন। এমন দিকনির্দেশনা দেখানো মানুষকে মিস করব। তাঁর রেখে যাওয়া সৃষ্টির যে সুন্দর শৈলী ও প্রভাব বিস্তারকারী কাজ রয়েছে, সেটা দিয়েই দর্শকদের মধ্যে বেঁচে থাকবেন।’

default-image

জিন-মার্ক ভ্যালি কানাডার মন্ট্রিল শহরে বসবাস করতেন। ১৯৮৫ সালে মিউজিক ভিডিও নির্মাণের মাধ্যমে পরিচালনায় আসেন। তাঁর নির্মিত প্রথম সিনেমা ‘ব্ল্যাক লিস্ট’। ২০০৬ সালে ‘ক্রেজি’ সিনেমার মাধ্যমে তিনি সিনেমা অঙ্গনে আলোচনায় আসেন। ২০১৪ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ওয়াইল্ড’ সিনেমা দিয়ে সব মহলে খ্যাতি পান। সিনেমাটি দুটি শাখায় একাডেমি পুরস্কার ও একটি শাখায় গোল্ডেন গ্লোবে মনোনয়ন পায়। পরের বছর নির্মাণ করেন ‘ডালাস বায়ার ক্লাব’। এটা তাঁর ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা সিনেমা। একাডেমি অ্যাওয়ার্ড অস্কারে তিন বিভাগে পুরস্কার জয় করে নেয়। সেখানে সম্পাদনা শাখায় মনোনয়ন পান জিন-মার্ক ভ্যালি। তিনি এইচবিওর সিরিজ ‘বিগ লিটল লাইস’–এর জন্য প্রশংসিত ছিলেন।

default-image

আইএমডিবির তথ্যমতে, জিন-মার্ক ভ্যালি প্রায় ৩ যুগের ক্যারিয়ারে ৯টি সিনেমা নির্মাণ করেছেন। তিনি সম্পাদনার পাশাপাশি প্রযোজক ছিলেন। ‘ওয়াইল্ড’, ‘ডালাস বায়ার ক্লাব’ ছাড়াও তাঁর উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘দ্য ইয়াং ভিক্টোরিয়া’—এটি তিন শাখায় অস্কারে মনোনয়ন পায়, ‘ক্যাফে ডি ফ্লোরে’, ‘ডেমোলিশন’। সদ্য প্রয়াত এই নির্মাতা সম্প্রতি ঘোষণা করেছিলেন ‘লেডি ইন দ্য লেক’ সিরিজের নাম। কাজ শুরুর আগেই মারা গেলেন। তিনি ৯ মার্চ ১৯৬৩ সালে কানাডার মন্ট্রিলে জন্মগ্রহণ করেন।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন