মিশন ইম্পসিবল সিরিজের তারকা টম ক্রুজ। ছবি: ইনস্টাগ্রাম
মিশন ইম্পসিবল সিরিজের তারকা টম ক্রুজ। ছবি: ইনস্টাগ্রাম

ধুন্ধুমার অ্যাকশন আর স্টান্টের জন্য জনপ্রিয় মিশন ইম্পসিবল। এবার এই ছবির সপ্তম কিস্তির শুটিংয়ে স্টান্ট করতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটল। এতে ফের আটকে গেল মিশন ইম্পসিবল ছবির শুটিং। এমনিতেই করোনায় থেমে ছিল এই ছবির কাজ। এবার শুটিং সেটে আগুন লেগে ক্ষতি হয়ে গেল কোটি টাকার। থমকে দাঁড়াল শুটিংয়ের কাজও।

বিজ্ঞাপন
default-image

গত মঙ্গলবার অক্সফোর্ডশায়ারে একটি মোটরসাইকেল স্টান্ট করার সময় শুটিং সেটে আগুন লেগে যায়। বেশ ভারী সেট ছিল সেখানে। স্ট্যান্টও ছিল ঝুঁকিপূর্ণ। স্টান্ট করতে গিয়ে শেষের দিকে এসে মোটরসাইকেলে আগুন ধরে যায়। এই দুর্ঘটনা বেশ প্রভাব ফেলেছে প্রযোজনাটির ওপর। কারণ, একদিকে আর্থিক ক্ষতি, অন্যদিকে আবার পিছিয়ে গেল ছবির শুটিং। এই সেট সাজাতে ২২ কোটি টাকার ওপরে খরচ হয়েছে বলে জানা গেছে। ব্রিটিশ গণমাধ্যম ডেইলি মেইল এ খবর নিশ্চিত করেছে।

দুর্ঘটনা ঘটার পর অক্সফোর্ডশায়ারের আকাশে কালো ধোঁয়ার কুণ্ডলী উড়তে দেখা যায়। শূন্যে মোটরসাইকেল দিয়ে স্টান্ট করার সময় নামতে গিয়ে মোটরসাইকেল বিস্ফোরণ হয়। যদিও মিশন ইম্পসিবল ছবিতে নিজের স্টান্ট নিজেই করতে পছন্দ করেন টম ক্রুজ। ওই দিন তিনি শুটিংয়ে অংশগ্রহণ করেননি। ছয় সপ্তাহ ধরে পরিকল্পনা করা হয়েছিল, তবু সফল হয়নি স্টান্টটি। এটি তাদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ ছিল। যদিও এই দুর্ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। অবশেষে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা এসে উদ্ধারকাজ চালান। কিন্তু এই দৃশ্যের জন্য পুনরায় আবার সেট তৈরি করতে একটা বিশাল অঙ্কের টাকা যাবে এক কথায় বলা যায়।

বিজ্ঞাপন
default-image

মিশন ইম্পসিবল ছবির সপ্তম কিস্তির শুটিং শুরু হয় গত মাসে। এর আগে করোনাভাইরাসের জন্য বন্ধ ছিল ছবির শুটিং। ছবির পরিচালক ও লেখক ক্রিস্টোফার ম্যাককুইন অন্তত তিনটি স্টান্ট পরিকল্পনা করেছেন, যা নিয়ে তিনি নিজেও শিহরিত। আর লকডাউনের সময়ে ক্রুজ স্টান্টের অনুশীলন করেন। তার মধ্যে আছে মোটরসাইকেল ও হেলিকপ্টার থেকে স্টান্ট। ২০২১ সালের ১৯ নভেম্বর ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন