বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
ব্রিটিশ রাজপরিবার থেকে বিদায় নিয়ে নিজেদের মতো জীবন যাপন করতে চেয়েছেন হ্যারি ও মেগান। যুক্তরাজ্য ছেড়ে তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের শহর শান্তা বারবারায় ১১ মিলিয়ন পাউন্ডে একটি বাড়ি কিনেছেন। নিজেদের এক বছরের ছেলে অর্চিকে নিয়ে সেখানেই বাস করছেন তাঁরা।

নেটফ্লিক্সের জন্য বৈচিত্র্যময় সব কনটেন্ট বানাবেন হ্যারি ও মেগান। বিভিন্ন সম্প্রদায় ও তাদের পরিবেশকে তুলে ধরা হবে সেসব কনটেন্টের মাধ্যমে। বিশ্বব্যাপী মানুষের সঙ্গে মানুষের মেলবন্ধন রচনা করাই এ দম্পতির উদ্দেশ্য। এক বিবৃতিতে হ্যারি ও মেগান জানিয়েছেন, ‘মানুষকে নানা কিছু জানানো ও আশাবাদী করে তোলার জন্য কনটেন্ট তৈরি করব আমরা। সাহস, সহনশীলতা, সম্পৃক্ততার কত শক্তি, সেটা মাথায় রেখেই আমরা কাজগুলো করব।’

হ্যারি ও মেগানের নেটফ্লিক্সে বিনিয়োগ করার খবরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। অনেক গ্রাহক নেটফ্লিক্স ছাড়ারও ঘোষণা দিয়েছেন।

হ্যারি ও মেগানের নেটফ্লিক্সে বিনিয়োগ করার খবরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। অনেক গ্রাহক নেটফ্লিক্স ছাড়ারও ঘোষণা দিয়েছেন। এ খবরকে কেন্দ্র করে টুইটারে এক গ্রাহক লিখেছেন, ‘নেটফ্লিক্স ছাড়ছি।’ আরেক গ্রাহক লিখেছেন, ‘নেটফ্লিক্সে এবার তাঁদের দেখতে হবে? বরং সাবস্ক্রিপশন বাতিল করে দিচ্ছি।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘আমাদেরও নেটফ্লিক্স ত্যাগ করার সুযোগ আছে।’ অন্যদিকে ইতিবাচক মন্তব্যও করেছেন অনেকে। এই দম্পতিকে স্বাগত জানিয়ে কেউ কেউ লিখেছেন, তাঁরা এক অনুপ্রেরণাদায়ক দম্পতি। তাঁরা যা-ই করুন, আমরা তাঁদের সঙ্গে থাকব।

default-image

প্রিন্স চার্লস ও প্রিন্সেস ডায়ানার ছোট ছেলে হ্যারি ও মেগান মার্কেলের দেখা হয়েছিল ২০১৬ সালে। দীর্ঘ সময় প্রেম করার পর ২০১৮ সালের মে মাসে উইন্সরের সেন্ট জর্জ চ্যাপেলে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনে বিয়ে করেন তাঁরা। ডায়ানাপুত্র হ্যারিকে বিয়ে করার আগে মেগান মার্কেলের পেশা ছিল অভিনয়। যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন সিরিজ ও চলচ্চিত্রে অভিনয় করতেন তিনি।

ব্রিটিশ রাজপরিবারের পদবি ত্যাগের ছয় মাস পর বিনোদন জগতে আসার এ উদ্যোগ নিলেন হ্যারি-মেগান দম্পতি। বর্তমানে তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় অনেকটা লোকচক্ষুর আড়ালে বসবাস করছেন।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন