বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নতুন করে স্কারলেটের সঙ্গে চুক্তি করেছে ডিজনি। এভাবেই ডিজনির বিরুদ্ধে স্কারলেটের মামলার নিষ্পত্তি হলো। তবে নতুন চুক্তিতে কী আছে, তা এখনো জানা যায়নি। বিবিসিকে ডিজনি স্টুডিওর কনটেন্ট চেয়ারম্যান অ্যালান বার্গম্যান বলেন, ‘আমি আনন্দিত যে ব্ল্যাক উইডো সিনেমাটি নিয়ে আমরা জোহানসনের সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছাতে পেরেছি। মার্ভেল সিনেম্যাটিক ইউনিভার্সে তাঁর অবদান সব সময়ই প্রশংসনীয়। ডিজনির টাওয়ার অব টেররসহ সামনের বেশ কয়েকটি প্রকল্পে শিগগির কাজ শুরু করব আমরা।’ স্কারলেট জানিয়েছেন, ডিজনির সঙ্গে তাঁর ঝামেলা মিটে গেছে। সামনে এই প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজের পরিকল্পনা করছেন তিনি। স্কারলেট বলেন, ‘বছরের পর বছর তাদের সঙ্গে কাজ করতে পেরে আমি সত্যিই গর্বিত। এই দলের সঙ্গে সৃজনশীল সম্পর্কটা আমি দারুণ উপভোগ করি।’

default-image
default-image

গত জুলাই মাসে চুক্তি ভাঙার অভিযোগে লস অ্যাঞ্জেলেসের আদালতে ডিজনির বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন স্কারলেট জোহানসন। তিনি জানিয়েছেন, ডিজনির মালিকানাধীন মার্ভেল স্টুডিও তাঁকে কথা দিয়েছিল, ছবিটি কেবল প্রেক্ষাগৃহেই দেখানো হবে। যদিও তিনি অনলাইনে ছবি চালানোর বিপক্ষে নন। তবে অন্তত ৯০ দিন প্রেক্ষাগৃহে চালানোর পর ডিজনির ছবিটি ওটিটিতে দেওয়া উচিত ছিল।

default-image

এই সুপারহিরো ছবি থেকে করোনাকালে প্রথম সপ্তাহে রেকর্ড পরিমাণ আয় করে প্রতিষ্ঠানটি। দ্বিতীয় সপ্তাহে ছবিটি স্ট্রিমিং করা হয় অনলাইনে। এতে বিপুল আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন ‘ব্ল্যাক উইডো’খ্যাত অভিনেত্রী স্কারলেট। কারণ, সিনেমা হলে যত বেশি টিকিট বিক্রি হবে, ততই পারিশ্রমিক বাড়বে এই অভিনেত্রীর। সেখানে হুট করেই স্ট্রিমিং সাইটে সিনেমাটি প্রকাশ করায় তাঁর ক্ষতি হয়েছে বলে মনে করেন স্কারলেট। অবশেষে দুই মাস পরে তাদের মিটমাট হলো।
এবার উভয় দিক থেকেই জানা গেল, তাদের মধ্যে ঝামেলা চুকে গেছে। তবে জোহানসন ও ডিজনি স্টুডিওর মধ্যকার এই মামলা স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে ছবি মুক্তির ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করেন হলিউড–সংশ্লিষ্ট অনেকে।

হলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন