default-image

শেহ্ওয়ার হোসেন ও মারিয়া হোসেন ২০২০ সালে বিয়ে করেন। শেহ্ওয়ার বাঙালি, মারিয়া রোমানিয়ার মেয়ে, থাকেন যুক্তরাজ্যে। বিয়ের পর থেকে একসঙ্গে ঘোরাঘুরি ও ভ্লগ করেন তাঁরা। ফেসবুকে বেশ জনপ্রিয় তাঁরা। শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা জানিয়ে শেহ্‌ওয়ার বলেন, 'অনেক বিষয়ের ভিডিও বানাই আমরা। কিন্তু এবার তুরস্কে দারুণ অভিজ্ঞতা হয়েছে। আমাদের তুরস্ক ভ্রমণনে বিখ্যাত কিছু জায়গায় ঘুরেছি আমরা। সিলেকটিভ কিছু জায়গা বেছে শুটিং করিনি। সব জায়গায় শুটিং করেছি। এর মধ্যে অনেক অপ্রত্যাশিত ঘটনা রয়েছে, যেমন আমাদের মান-অভিমান, মন খারাপের মুহূর্তও। প্রতিটি মুহূর্তই দর্শককে আনন্দ দেবে।'

default-image

মারিয়া বেশ ভালো বাংলা বলেন। তিনি বলেন, 'আমি কিন্তু বাংলায় কথা বলতে পারি। আমার বাংলা ভালো লাগে।' জানান, স্বামী কম সহায়তা করেন তাঁকে। নিজের আগ্রহে বাংলা শিখছেন তিনি। তুরস্ক ভ্রমণের এই শোতেও বিষয়গুলো উঠে এসেছে। ইংরেজি ও বাংলায় কাজের অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে মারিয়া হোসেন বলেন, 'আমরা যখন তুরস্কে শুটিংয়ে যাই, তখন কিছু অপ্রত্যাশিত ঘটনার মুখোমুখি হয়েছিলাম। ইস্তাম্বুল নামার পর অনেকেই আমাদের ঠকিয়েছে। সে সময় অনেক বাংলাদেশির সঙ্গে পরিচয় হয়েছে, যাঁরা চিনতে না পারলেও আমাদের সহায়তা করেছেন। তাঁদের আতিথেয়তায় আমরা মুগ্ধ। দেশের কোনো প্ল্যাটফর্মে এ ধরনের শো এটাই প্রথম জেনে আমরা খুশি। আমরা চরকির কাছে কৃতজ্ঞ। দারুণ একটি টিমের সঙ্গে কাজ করেছি।'

default-image

এই ট্রাভেল শো নিয়ে চরকির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, 'আমরা শুরু থেকে বলে আসছি, ভিন্ন ধরনের আয়োজন নিয়ে দর্শকের সামনে আসব। দর্শক চরকিতে নতুন কিছু দেখবেন। সেই ধারাবাহিকতায় চরকির প্রথম ঈদে প্রস্তুত করা হয়েছে নানা রকম কনটেন্ট।'

'ঘুর ঘুর ঘূর্ণি উইথ শেহ্ওয়ার অ্যান্ড মারিয়া' ট্রাভেল সিরিজ দেখা যাবে ছয় পর্বে। তিন ধাপে দুটি করে পর্ব প্রচার করা হবে। আজ মুক্তি পাচ্ছে শোর প্রথম দুটি পর্ব। পরে ২৮ এপ্রিল ও ২ মে রাত আটটায় বাকি চারটি পর্ব প্রচারিত হবে। ইতিমধ্যে চরকির ফেসবুক পেজে শোর টিজার প্রকাশিত হয়েছে।

ওটিটি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন