default-image

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে চলে গেলেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠযোদ্ধা নমিতা ঘোষ। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। আজ শনিবার জর্জকোর্টে গার্ড অব অনার জানানোর পর বিকেলে রাজধানীর পোস্তগোলা শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। ১৯৭১ সালে আজকের দিনেই যুদ্ধে গিয়েছিলেন এই কণ্ঠসৈনিক।

বিজ্ঞাপন
default-image

সংগীতের মাধ্যমে যে শিল্পীরা মুক্তিযোদ্ধাদের উজ্জীবিত করছেন, নমিতা ঘোষ তাঁদের একজন। মাত্র ১৪ বছর বয়সে তিনি যুদ্ধের ময়দানে হাজির হয়েছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ রাতে দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে তিনি চলে যান ভারতের আগরতলায়, পরিচিত হন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকদের সঙ্গে। সেখানে নির্মীয়মাণ একটি প্রামাণ্যচিত্রেও অংশ নেন তিনি। পরে ওই প্রামাণ্যচিত্র ভারতের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হয়। প্রামাণ্যচিত্রের শুটিংয়ের পর আগরতলা থেকে নমিতা চলে যান কলকাতায়, যোগ দেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে।

নমিতা ঘোষের শারীরিক নানা সমস্যা ছিল। সেসব থেকে সেরে উঠেছিলেন তিনি। হঠাৎ করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে গতকাল শুক্রবার রাতে তিনি মারা যান। নমিতারা ১০ ভাইবোন, নমিতাসহ বিদায় নিয়েছেন ৪ জন। ছোট বোন কবিতা ঘোষ জানান, নমিতা ঘোষ শারীরিকভাবে সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। করোনা তাঁকে বেঁচে থাকতে দিল না।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন