চলচ্চিত্রের গান গাওয়াটা একটু কঠিন মনে করছেন প্রিয়াঙ্কা গোপ। তারপরও এই মাধ্যমে নিয়মিত গাওয়ার ইচ্ছা রয়েছে বলে জানালেন তিনি। প্রিয়াঙ্কা বললেন, ‘প্লেব্যক আমার কাছে একটু চ্যালেঞ্জিং মনে হয়। এই মাধ্যমে গাওয়ার সময় পর্দায় শিল্পীর অভিব্যক্তির ব্যাপারটিও মাথায় রাখতে হয়। তাই অন্যরকম একটা ভালো লাগাও কাজ করে। তবে চলচ্চিত্রে যে কয়টি গান গেয়েছি, সুন্দর অভিজ্ঞতা হয়েছে। এবারও যে দুটি গান গেয়েছি, পরিচালক–প্রযোজকও পছন্দ করেছেন।’

প্রিয়াঙ্কা গোপের গান শেখার শুরু পাঁচ-ছয় বছর বয়সে। তখন রবীন্দ্রসংগীত, নজরুলসংগীতসহ সব গানই শিখেছেন তিনি। জাতীয় পর্যায়ে স্বর্ণপদক পেয়েছেন। শাস্ত্রীয় সংগীত সম্পর্কে তাঁর ধারণা হয়েছে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার পর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অসিত রায়ের মাধ্যমে শাস্ত্রীয় সংগীত সম্পর্কে জানাশোনা শুরু। একসময় চিকিত্সক হওয়ার স্বপ্ন ছিল।

মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগও পেয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে পড়তে যাননি। আইসিসিআরের (ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর কালচারাল রিলেশন) শিক্ষাবৃত্তি নিয়ে ২০০৩ সালে পড়তে যান রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হয়েছিলেন। তাঁর প্রথম অ্যালবাম ‘সুরে সুরে দেখা হবে’, এটি আধুনিক বাংলা গানের সংকলন, বেরিয়েছিল ২০১১ সালে।