বনানীতে ইফতারের আমন্ত্রণে অংশ নিতে যাওয়ার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন বলে জানান গায়ক মাঈনুল আহসান নোবেল। ভারতের টিভি রিয়েলিটি শো সারেগামাপায় অংশ নেওয়া এই কণ্ঠশিল্পী উদ্ধত্যপূর্ণ মন্তব্য করে আলোচনার পাশাপাশি বিভিন্ন সময় হয়েছিলেন সমালোচিত। গতকাল শুক্রবার দুপুরে প্রথম আলোর সঙ্গে তাঁর আলাপ তুলে ধরা হলো।

ফেসবুকে একটি ছবিতে দেখলাম আপনার চোখে ব্যান্ডজ।

এক বয়স্ক লোক অসতর্কভাবে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে অ্যাকসিডেন্ট করেছি। আমার মাথার তালুতে ১২টা, বাঁ পাশের ভ্রুতে ১৮টা, মোট ৩০টা সেলাই পড়েছে। তবু তৃপ্তি অনুভব করছি, লোকটার কিছু হয়নি। আপনাদের দোয়ায় ভালো আছি।

কোথায়, কীভাবে দুর্ঘটনা ঘটল?

বনানী ক্লাবের ওখানে, ইফতারের আগমুহূর্তে। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে। বনানীতে ইফতারের দাওয়াত ছিল। আমি বাইক চালাচ্ছিলাম, হঠাৎ করে একজন বয়স্ক লোক সামনে চলে আসে, তাকে বাঁচাতে গিয়ে আমি ছিটকে পড়ে যাই।

default-image

চিকিৎসা নিয়েছেন কোথায়?

আহত অবস্থায় বাইক চালিয়ে কচুক্ষেত এলাকায় একটি হাসপাতালে চলে যাই। সেখানে পরিচিত চিকিৎসক ছিলেন, প্রাথমিক চিকিৎসা সেখানেই নিয়েছি।

এখন কি হাসপাতালে?

তাঁরা আমাকে হাসপাতালেই থাকতে বলেছিলেন। কিন্তু রাতে ডিওএইচএস এলাকায় আপুর বাসায় চলে যাই। এরপর আজ (শুক্রবার) সকালে নিজের বাসায় চলে এসেছি।

বিজ্ঞাপন

ব্যথা কেমন?

ব্যথা তো টুকটাক আছে। সাবধানে চালাচ্ছিলাম। বাইকের গতি ছিল ৬০-৬৫ কিলোমিটার।

default-image

কদিন আগে দেখলাম, পুরুষ নির্যাতন নিয়ে ফেসবুকে একটা পোস্ট দিয়েছেন। হঠাৎ কী মনে করে?

ওটা আসলে ফেসবুক পেজ গরম রাখার জন্য। আমার ফেসবুকের রিচ কমে গেছিল, তাই দিয়েছি।

ফেসবুকের হিটের আশায় এমনটা করেছেন?

হ্যাঁ। কী করব, রিচ কমে যাচ্ছিল। তবে কদিন আগে যেটা লিখেছিলাম, ব্যক্তিগত কষ্ট থেকে। আমি গান–বাজনা করে মানুষকে ভালো রাখার চেষ্টা করছি। তা ছাড়া আমি কাজ করি বলে অন্তত ২০টা সংসার চলে।

ঈদে কি নতুন গান আসছে?

হ্যাঁ, ঈদে পাঁচ-ছয়টা গান প্রকাশ করতে যাচ্ছি। ২৩ রমজানে ‌‘মেহেরবান’ গানটা ছাড়ব। আরেকটা গান ঈদের ঠিক পরপর। এর মধ্যে গানচিল, ধ্রুব মিউজিক স্টেশনের সঙ্গে কথা হয়েছে।

default-image

সাউন্ডটেকের সঙ্গে না আপনার চুক্তি ছিল? এর বাইরে কাজ করতে পারবেন?

ছিল। কিন্তু এখন অন্যদের সঙ্গেও কাজ করতে পারব। তারা আমাকে এনওসি দিয়েছে। আসলে তারা আমাকে অ্যাফোর্ড করতে পারছে না। প্রতি মাসে আমার দুইটা গান প্রকাশ করতে পারছে না। কারণ ভিডিও-অডিওসহ আমার এক একটা গান করতে ৮-১০ লাখ টাকা খরচ হয়।

ফেসবুকে আপনি যেভাবে লেখালেখি করছেন, এতে আপনার ভাবমূর্তি নষ্ট হবে বলে মনে হয় না?

অনেকেই এসব নিয়ে লেখালেখি করেছে। যা খুশি লিখুক, সাংবাদিকেরা তো বহু লিখেছে। এগুলো আসলে আমার গোনার সময় নাই। যার যা খুশি লিখুক, আমি আমার গান দিয়ে টিকে থাকব। আমার খাইসলত খারাপ, আই ডোন্ট মাইন্ড।

বিজ্ঞাপন

তার মানে সবাই যে সমালোচনা করছে, তাতে আপনি মোটেও চিন্তিত নন?

ব্যক্তি হিসেবে আমাকে কেউ পছন্দ না করলে কিচ্ছু যায় আসে না। আমার গান পছন্দ করলেই হবে।

default-image

কিন্তু গায়কের পাশাপাশি ব্যক্তি ইমেজটাও কি গুরুত্বপূর্ণ নয়?

না না, আমি তা মনে করি না। আমি ব্যক্তি মানুষ হিসেবে ভালো না। ব্যক্তি মানুষ হিসেবে আমি খুবই খারাপ। আমার গান যদি কারও পছন্দ হয়, শুনতে পারে। না শুনলেও সমস্যা নাই।

এমনভাবে বলার কারণ কী?

আমি এত দিন বাংলাদেশের দর্শক–শ্রোতাদের মতামত অনেক বেশি আমলে নিয়ে ফেলেছি। আর না। বাংলাদেশের যে সমস্ত দর্শক–শ্রোতা বাবা-মা তুলে গালি দিতে পারে, তাঁদের আমার দরকার নাই। আমি নোবেল, আমার পার্সোনাল অপিনিয়ন থাকতেই পারে। তাই বলে কেউ তো বাবা-মা তুলে গালি দিতে পারে না! এদের নিয়ে ভাবার টাইম আমার নাই। তারা আমার গান না শুনুক, ওয়েলকাম। আমাকে যদি এতই অপছন্দ, আমার গান শোনার দরকার নাই। পাঁচজন মানুষ যদি আমার অ্যাটিটুড পছন্দ করেন, আমি পাঁচজনের জন্যই গান গাইব।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন