বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এই মন্তব্যে বিশ্বজুড়ে ব্যাপক নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হয়েছে। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের করোনাভাইরাস-সম্পর্কিত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এর নিন্দা জানিয়েছেন। ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, তাঁর এই মন্তব্য সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। নিকির এই টুইটের পর তাঁরা এর সত্যতা যাচাই শুরু করেন। পরে এটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়। তাঁর মতে, এটা সময় নষ্ট করা ছাড়া আর কিছুই নয়।

default-image

এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সংক্রামক রোগবিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসিকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, টিকা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচুর ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমি তাঁকে দোষ দেব না। তবে তথ্য ছড়ানোর আগে তাঁকে অবশ্যই দ্বিতীয়বার চিন্তা করা উচিত ছিল যে আসলেই এটার কোনো মৌলিক ভিত্তি আছে কি না এবং এটা কোনো বিজ্ঞানসম্মত কথাও নয়।’

default-image

অন্য একটি টুইটে নিকি মিনাজ জানিয়েছিলেন, টিকা নিয়ে যথেষ্ট গবেষণা এখনো হয়নি। তাই তিনি টিকা নেননি। এ কারণে বিশ্বের ফ্যাশন উৎসবের অন্যতম ঝলমলে আসর মেট গালাতেও অংশগ্রহণ করতে পারেননি। তবে তাঁর কথা, জেনেশুনেই টিকা নেবেন, তার আগে নয়। তবে টিকার বিরুদ্ধে নন তিনি।
নিকি মিনাজ তাঁর গানের প্রতিবাদী কথার জন্য আলোচিত। তবে টিকা নিয়ে তাঁর ভুল তথ্য ছড়ানো সত্যিই তাঁকে বেকায়দায় ফেলে দিল।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন