default-image

আসিফ আকবরের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা পরিচালনা করেছেন তাঁরই ছোটবেলার বন্ধু ও তাঁর স্ত্রী। তাই এই বন্ধুর প্রতি কৃতজ্ঞতার শেষ নেই তাঁর। বন্ধু প্রসঙ্গে লিখতে গিয়ে আসিফ লিখেছেন, ‘আমার বন্ধু মইন খবর পেয়ে স্বেচ্ছায় এই মামলা নিয়েছে...সে প্রতিটা ডেটে নিম্ন আদালতে আমার সাথে পায়ে হেঁটে সাততলা, নয়তলার সিঁড়ি ভেঙে উঠেছে বিনা বিরক্তিতে। আমাকে বকেছে, শাসন করেছে, আবার আগলে রেখেছে তার বুকের ভেতর লুকিয়ে থাকা নরম কুসুমের মতো আবেগের জায়গাটায়...।’
কারাগারে যাওয়া জীবনের আসিফের জীবনের নতুন অভিজ্ঞতা। তাঁর মতে, এই সময়টায় তিনি মানুষকে নতুন করে চেনার সুযোগ পেয়েছেন। এই প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তিনি বললেন, ‘দেশের মানুষ আমার জন্য দোয়া করেছেন, সারা দেশের মানুষের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। যারা কোনো সত্য না জেনে অভ্যাসবশত আমার মরহুম বাবা–মাকে গালাগাল করেছে, তাদেরও ধন্যবাদ। আমার পরিবার, বন্ধুমহল, ইন্ডাস্ট্রির সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা। গীতিকার শফিক তুহিনকেও বিশেষ ধন্যবাদ আমাকে জেলে পাঠিয়ে নতুন অভিজ্ঞতা দেওয়ার জন্য। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে চাই, আইনজীবীর সন্তান এবং দেশের দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে।’

default-image

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) আইনে গীতিকার, সুরকার ও গায়ক শফিক তুহিনের দায়ের করা মামলায় ২০১৮ সালের ৫ জুন দিবাগত রাতে গ্রেপ্তার হন আসিফ আকবর। সেদিন দিবাগত রাত দেড়টার দিকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) একটি দল আসিফকে এফডিসির কাছে তাঁর অফিস থেকে গ্রেপ্তার করে।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন