বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিল্পীর প্রয়াণে শোক প্রকাশ করে ওস্তাদ আমজাদ আলী খান লিখেছেন, ‘পণ্ডিত শিবকুমার শর্মার প্রয়াণ একটি যুগাবসান। তিনি সন্তুর যন্ত্রটির অগ্রণী শিল্পী। আমার কাছে অবশ্য এটা ব্যক্তিগত শোকের মুহূর্ত। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করছি। তাঁর সংগীত বাজতে থাকুক আমাদের হৃদয়ে।’

default-image

কাশ্মীরের বাদ্যযন্ত্র সন্তুর উপত্যকার বাইরে খুব একটা পরিচিত ছিল না। এ বাদ্যযন্ত্রকে ভারতে জনপ্রিয় করে তোলার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা ছিল পণ্ডিত শিবকুমার শর্মার। সেতার, সরোদের মতোই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে সন্তুর। অনেকেই বাদ্যযন্ত্রটির প্রতি আকৃষ্ট হয়ে ওঠেন। সন্তুর বাজানোর পাশাপাশি পণ্ডিত হরিপ্রসাদ চৌরাসিয়ার সঙ্গে মিলে বিভিন্ন ছবির সংগীত পরিচালনাও করেন পণ্ডিত শিবকুমার শর্মা। উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘সিলসিলা’, ‘লামহে’, ‘চাঁদনি’।

default-image

১৯৩৮ সালের ১৩ জানুয়ারি জম্মুর একটি সম্ভ্রান্ত সংগীতজ্ঞ পরিবারে জন্ম শিবকুমারের। তাঁর বাবা উমা দত্তশর্মা ছিলেন প্রথিতযশা সংগীতশিল্পী। মাত্র পাঁচ বছর বয়স থেকেই শিবকুমার তাঁর বাবার কাছ থেকে শাস্ত্রীয় সংগীতে প্রশিক্ষণ নেওয়া শুরু করেন। উমা সন্তুর নিয়ে অনেক গবেষণা করেন এবং সিদ্ধান্ত নেন যে ছেলেকে তিনি সন্তুরবাদক হিসেবে গড়ে তুলবেন।

এই চিন্তা থেকে শিবকুমারকে ১৩ বছর বয়স থেকে সন্তুরের প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু করেন। পরবর্তীকালে ‘সন্তুর’ যন্ত্রটি নিয়ে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন শিবকুমার। পরে শিবকুমার চলে যান মুম্বাই। তাঁর বিচরণক্ষেত্র গোটা বিশ্ব হলেও মূলত তিনি কাজ করেছেন মুম্বাই থেকেই।

default-image

সংগীত নাটক একাডেমিসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বহু পুরস্কার পেয়েছেন শিবকুমার। ২০০১ সালে পান পদ্মবিভূষণ। এ ছাড়া আমেরিকার সম্মাননীয় নাগরিকত্ব প্রদান করা হয় তাঁকে।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন