default-image

দীর্ঘ আট বছর বিরতির পর গত ১৯ জুন কলম্বিয়া রেকর্ডস থেকে মুক্তি পেয়েছে বব ডিলানের নতুন অ্যালবাম রাফ অ্যান্ড রাউডি ওয়েজ। দ্রোহ, প্রেম ও মুক্তির বার্তা নিয়ে আসা অ্যালবামটি প্রকাশের সময় হিসেবে ডিলান বেছে নিয়েছেন মহামারিতে বিপর্যস্ত ও কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল এক ভীষণ ‘রাফ অ্যান্ড রাউডি’ সময়কে। শ্রোতারাও ভালোবেসে গ্রহণ করেছেন সাহিত্যে নোবেলজয়ী একমাত্র গায়ক, গীতিকবির নতুন গানগুলো।

বব ডিলানের এই অ্যালবামটি চলতি সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বিলবোর্ড টপচার্টে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। সেই সঙ্গে ডিলান গড়েছেন এক অভূতপূর্ব ইতিহাস। বব ডিলানই এখন পর্যন্ত একমাত্র গায়ক, গত সাতটি দশকের প্রতিটিতেই যাঁর অ্যালবাম বিলবোর্ডের ‘টপ ৪০ বেস্ট অ্যালবাম’ তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে।

বিলবোর্ড টপচার্টের রেকর্ড বলছে, এর আগে ষাটের দশকে ৮ বার, সত্তরের দশকে ১৪ বার, আশির দশকে ৭ বার, নব্বইয়ের দশকে ৪ বার, ২০০০-এর দশকে ৭ বার ও ২০১০–এর দশকে ৯ বার এ তালিকায় স্থান পেয়েছে বব ডিলানের অ্যালবাম। অর্থাৎ বিলবোর্ডের শীর্ষ ৪০ সেরা অ্যালবামের তালিকায় এটি তাঁর ৫০তম অর্জন।

রক, ব্লুজ, পপ, ফোক কিংবা গসপেল মিউজিকের সঙ্গে জীবনের বহুমুখী গল্পের মেলবন্ধন ঘটিয়ে তরুণদের মধ্যে সংগীতজীবনের শুরুতেই দারুণ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন ডিলান। সেই জনপ্রিয়তা এখনো কম নয়। প্রেম ও প্রতিবাদ বারবার মিলেমিশে গেছে ডিলানের গানে ও লেখায়। কখনো গানে গানে বলেছেন এক অভাবী কৃষকের কথা, যে তাঁর স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা করেছে অভাবের তাড়নায়। কখনো বিরহের সুরে শুনিয়েছেন দুঃখ-ভরা চোখের এক মেয়ের কথা।

এবার নিজের ৩৯তম অ্যালবামেও বজায় রেখেছেন বিপ্লব ও ভালোবাসার মন্ত্রে দীক্ষিত নিজস্ব স্বকীয়তা। নতুন গানগুলোর মধ্যে সর্বাধিক দর্শকপ্রিয় হয়ে ওঠা ‘মার্ডার মোস্ট ফাউল’ গানটির প্রেক্ষাপট যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডির হত্যাকাণ্ড। ১৬ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড দীর্ঘ এ গানটি মার্কিন ইতিহাসের এক অন্ধকারাচ্ছন্ন রূপক চেহারা তুলে ধরে শ্রোতার সামনে। বিলবোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ডিজিটাল মাধ্যমে সর্বাধিক বিক্রি হওয়া রক গানগুলোর তালিকার শীর্ষে আছে গানটি।

ষাটের দশকের শুরুতে গান গাইতে শুরু করেছিলেন ডিলান। তাঁর শুরুর সেই জনপ্রিয়তায় এখনো এতটুকু ভাটা পড়েনি। আজও ডিলানের কাছে লেখা চিঠিতে ভক্তরা বলেন, ‘অ্যালবামটি (রক অ্যান্ড রাউডি) ভালো। তবে বলা মুশকিল ঠিক কতটা ভালো; কারণ এত ভালো কিছু কি আমরা কখনো শুনেছি?’

তাবাসসুম ইসলাম

সূত্র: বিবিসি, এনএমি ডটকম

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন