default-image

২৮ মাসের মাথায় আবারও স্বামীকে ছেড়ে আলাদা থাকার ঘোষণা দিলেন কণ্ঠশিল্পী ন্যান্‌সি। আজ রোববার সন্ধ্যায় ন্যান্‌সি তাঁর ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়ে স্বামী থেকে আলাদা থাকার বিষয়টি প্রকাশ্যে আনেন। তবে কবে থেকে আলাদা থাকছেন, সে ব্যাপারে সেখানে কিছু জানাননি। তবে ওই পোস্টে নতুন ‘পথচলা’ শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। এই ‘পথচলা’ নানা অর্থ বহন করে।

২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে স্বামী থেকে আলাদা থাকার কথা জানিয়েছিলেন ন্যান্‌সি। সংবাদমাধ্যমে তখন তিনি জানিয়েছিলেন, বিচ্ছেদের জন্য নয়, স্বামীর সঙ্গে দাম্পত্য সম্পর্কটাকে আরেকটু ঝালিয়ে নিতেই এ সিদ্ধান্ত। বছরের প্রথম দিন তাঁর এ ঘোষণাকে অনেকেই বিচ্ছেদ বলে ধরে নিয়েছিলেন। ন্যান্‌সি বলেছিলেন, ‘বিচ্ছেদের জন্য আমরা আলাদা থাকছি না। আমরা তেমন কোনো সিদ্ধান্তও নিইনি। দাম্পত্য জীবনে দুজনের মধ্যে তৈরি হওয়া দূরত্ব কমানোর জন্যই আলাদা থাকার সিদ্ধান্ত।’

বিজ্ঞাপন
default-image

সেই দূরত্ব এত দিনে কতটা কমেছে, তা জানা না গেলেও দুই বছর পর আবার আলাদা থাকছেন বলে পোস্ট দেওয়ার অর্থ—সম্পর্কটা ঝালাই করে নেওয়া হয়নি তাঁদের। আজ রোববার সন্ধ্যায় ন্যান্‌সি ফেসবুকে লেখেন, ‘আমি এবং জায়েদ দীর্ঘদিন ধরেই আলাদা থাকছি। তবে মাঝেমধ্যেই আমাদের দেখা বা ফোনালাপ হয়। আমার এবং জায়েদের একমাত্র কন্যাসন্তান নায়লা তার বাবার সঙ্গেই থাকে। নায়লাকে নিজের কাছে রাখার সিদ্ধান্ত এককভাবে জায়েদের। যেহেতু স্বামী-স্ত্রীর বাইরেও আমরা দীর্ঘদিনের বন্ধু, কাজেই বোঝাপড়াটা মন্দ নয়। তবে নাটকীয়ভাবে বলব না, আমরা আজীবন বন্ধু থেকে যাব।’

ন্যান্‌সি এ বিষয়ে ফেসবুকে আরও লেখেন, ‌‘কিছু বৈরী সম্পর্ক তৈরি না হলে নিশ্চয়ই আলাদা থাকতাম না! কে সঠিক, কে বেঠিক এ নিয়ে ফিসফিস করার কিছু নেই। আমাকে অথবা জায়েদকে সরাসরি জিজ্ঞাসা করলেই হয়। আর হ্যাঁ, আমাদের এখনো বিচ্ছেদ হয়নি। হলে নিশ্চয়ই সবাইকে জানিয়ে দেওয়া হবে। তারপর নতুন জীবনে কী করব, সেটা আপাতত আমি নিজেই ভাবছি না। দয়া করে আপনারাও মানসিক চাপ নেবেন না। আপনারাও ভালো থাকুন, আমাদেরও ভালো থাকতে দিন। জীবন থেমে থাকে না, নিশ্চিত নতুন করে পথচলা শুরু করব। তবে এটাও নিশ্চিত, আমার নতুন পথচলায় কাছের মানুষেরাই আমন্ত্রিত হবেন।’

default-image

২০১৩ সালের ৪ মার্চ ময়মনসিংহের নাজিমুজ্জামান জায়েদকে বিয়ে করেন ন্যান্‌সি। জায়েদ ও ন্যান্‌সির সংসারে নায়লা নামে একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। জায়েদ ময়মনসিংহ পৌরসভায় চাকরির পাশাপাশি ব্যবসা করেন।

জায়েদের সঙ্গে সংসার শুরু করার আগে ২০০৬ সালে আরেক ব্যবসায়ী আবু সাঈদ সৌরভকে বিয়ে করেছিলেন ন্যান্‌সি। ২০১২ সালের ২৪ মে ছয় বছরের সেই সংসারের ইতি টানেন তাঁরা। পরের বছরই দ্বিতীয় সংসার শুরু করেন ন্যান্‌সি। প্রথম সংসারে রোদেলা নামে তাঁর আরেকটি কন্যাসন্তান আছে।

ন্যান্‌সির সংগীতজীবন শুরু হয় ২০০৬ সালে ‘হৃদয়ের কথা’ চলচ্চিত্রে গান গেয়ে। ২০০৯ সালে তাঁর প্রথম অ্যালবাম ‘ভালোবাসা অধরা’ প্রকাশিত হয়। ২০১১ সালে ‘প্রজাপতি’ সিনেমার গানে কণ্ঠ দিয়ে তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন
গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন