default-image

তিন দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া লালনসংগীতের বরেণ্য শিল্পী ফরিদা পারভীনের শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তাঁকে কৃত্রিম উপায়ে অক্সিজেন দিতে হচ্ছে না, জ্বরও নেই। আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রথম আলোকে ফরিদা পারভীনের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা প্রসঙ্গে এমনটাই জানালেন তাঁর জামাতা সাজ্জাদুর রহমান।

করোনা পজিটিভ হওয়ার পর থেকেই চিকিৎসকের পরামর্শে বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন ফরিদা পারভীন। গত সোমবার সকালে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ফরিদা পারভীনের জামাতা সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘দুই দিন ধরে অবস্থা ভালোর দিকে। কোভিড–১৯–এর অন্য কোনো উপসর্গ নেই। তবে এখনো নেগেটিভ রিপোর্ট আসেনি। তবে আমার শাশুড়ির কিডনি সমস্যা আছে, সেটারই ট্রিটমেন্ট চলছে।’

বিজ্ঞাপন
default-image

গত মাসের শেষ দিকে জ্বর ও খুসখুসে কাশি ছিল ফরিদা পারভীনের। করোনার উপসর্গ ভেবে একাধিকবার নমুনা পরীক্ষা করান। দুবারই ফলাফল নেগেটিভ আসে। সর্বশেষ ৭ এপ্রিলের পরীক্ষায় তাঁর করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে এবং শেষ পর্যন্ত তাঁকে হাসপাতালে যেতে হয়।

১৯৫৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর নাটোর জেলার সিংড়া থানার শাওল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ফরিদা পারভীন। জন্ম নাটোরে হলেও বড় হয়েছেন কুষ্টিয়ায়। ১৯৬৮ সালে রাজশাহী বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পী হিসেবে নজরুলসংগীত গাইতে শুরু করেন। পরে ১৯৭৩ সালে দেশাত্মবোধক গান গেয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। সাধক মোকসেদ আলী শাহর কাছে ফরিদা পারভীন লালনসংগীতে তালিম নেন।

গান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন